392 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

অফিস কক্ষে মাদকসেবনের দৃশ্য ধারনের চেষ্টা! শরীয়তপুরে জনস্বাস্থ্যের নির্বাহী প্রকৌশলীর হাতে লাঞ্ছিত দুই টেলিভিশন সাংবাদিক

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধি: শরীয়তপুরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান মৃদুলের অফিসকক্ষে মাদকসেবনের দৃশ্য ধারন করায় লাঞ্ছিত করা হয়েছে দুই টিভি সাংবাদিককে। বৃহস্প্রতিবার (১৮ জুন) বিকাল ৫টার দিকে শরীয়তপুর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান মৃদুলের অফিস রুমে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের ও সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তাদের অবহিত করে পালং মডেল থানায় রাত ১০টায় দিকে একটি অভিযোগ করেছেন ভুক্তভুগি সাংবাদিক। ঘটনার পর থেকে জেলার অনন্য সাংবাদিকদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

লাঞ্ছনার শিকার সাংবাদিকরা হলেন, শরীয়তপুর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি, এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজ এবং বাংলাদেশ প্রতিদিনের জেলা প্রতিনিধি রোকনুজ্জামান পারভেজ এবং যুগ্ন সম্পাদক ও গাজি টিভির প্রতিনিধি মো. মানিক মোল্লা। লাঞ্ছিত করার ঘটনায় সংগঠনের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও পতিবাদ জানানো হয়েছে।

এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজ এবং বাংলাদেশ প্রতিদিনের জেলা প্রতিনিধি রোকনুজ্জামান পারভেজ বলেন, শরীয়তপুরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতাধীন শরীয়তপুর সদর ডোমসার ইউনিয়নে প্রায় দুই কোটি টাকা ব্যায় একটি গভীর নোলকুপের পানির পাম্প নির্মানাধীন অবস্থায় অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।এ নির্মানাধীন কাজের স্টিমেট চেয়ে নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান মৃদুলের কাছে ফোন দেওয়া হয়। এরপর বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি অফিসে রয়েছে বলে সাংবাদিক মানিক মোল্যাকে ফোনে জানান। পরে ৫টার দিকে শরীয়তপুরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর কার্যালয়ের আমরা দুইজন যাই। গিয়ে দুইতলায় উঠে নির্বাহী প্রকৌশলী অফিস কক্ষে ঢুকেই সিগারেট খেতে দেখি। পরে গাঁজার গন্ধ পাই। এ সময় আমার সঙ্গে থাকা গাজি টিভির সাংবাদিক মনিক মোল্যা ওই মাদক সেবনের দৃশ্য ক্যামেরায় ধারন করার চেষ্টা করে। এঅবস্থায় সাংবাদিক এর হাত থেকে ক্যামারা ছিনিয়ে নিয়ে যায় প্রকৌশলী । এক ঘন্টার মত তার অফিসের কেচি গেট আটকে রাখে মারপিট করার হুমকি দেন। এ অবস্থায় জেলা প্রাশাসককে ফোন করলে তিনি তার পিয়ন দিয়ে তালা খুলে দেয়।

তিনি আরো জানান, তখন নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান মৃদুল উত্তেজিত হয়ে আমাদের মারপিট করার চেষ্টা করে এবং নিচের গেইট আটকে দেন। ওই সময় ঘটনাটি জেলার শীর্ষ কর্মকর্তা ডিসি ও স্থানীয় সাংবাদিকদের মুঠোফোনে জানানোর চেষ্টা করি। এর কিছু সময় পর মোবাইল ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে যান ওই নির্বাহী প্রকৌশলী। এ ঘটনা নিয়ে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন এই সিনিয়র সাংবাদিক।

এ বিষয়ে জানতে শরীয়তপুরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান মৃদুলকে বারবার ফোন করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

শরীয়তপুর ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক ও বাংলাভিশনের জেলা প্রতিনিধি শহিদুজ্জামান খান বলেন, একজন মাদকাশক্ত অফিসার অফিসকক্ষে বসে মাদক সেবক করবে আবার সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করবেন এটা দুঃখজনক। আমার ওই কর্মকর্তাকে গ্রেফতার এবং সুষ্ট তদন্ত করে বিচারের দাবী জানাচ্ছি।

পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অফিসার ইনচার্জ আসলাম উদ্দিন বলেন, সাংবাদিকদের সাথে খারাপ ব্যবহার করার একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের বলেন, সাংবাদিকদের সাথে ঘটনাটির বিষয়ে শুনেছি। ভুক্তভুগি সাংবাদিকদের অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রনালয়কে জানানো হবে।

নুর মোহাম্মদ রিয়াজ/পথিক নিউজ