837 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

‘কসবার শিমরাইলে হুফ্ফাজুল কোরআন সংবর্ধনা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন’

প্রথম বারের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাধীন কসবা উপজেলার শিমরাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের মিলিনিয়াম ব্যাচ (এসএসসি ২০০০) কর্তৃক আয়োজিত ‘হুফ্ফাজুল কোরআন সবংর্ধনা ও পুরস্কার বিতরনী’ অনুষ্ঠান ২০২১ সফলভাবে সমপন্ন হয়েছে।

শিমরাইল গ্রামের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে ২০২০-২১ সময়কালে হেফ্জ সম্পন্নকারী ৮ জন হাফেজ এবং ১৫ পাড়া সমপন্নকারী ৯ জন শিক্ষার্থী সহ মোট ১৭ জনকে অদ্য শনিবার (২৭ মার্চ) সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। আলহাজ্ব শাহজাহান ভুইয়া (শাজু)
সাহেবের সভাপতিত্বে শিমরাইল উত্তরপাড়া হাজী রিয়াজ উদ্দিন স্মৃতি হেফজখানা মাদ্রাসা ও এতিমখানায় অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয় যেখানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অত্র এলাকার গন্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ সহ মাদ্রাসার শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্ট ওস্তাদ, পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও মিলিনিয়াম ব্যাচের প্রতিনিধিবৃন্দ সহ কয়েক শতাধিত ধর্মপ্রান মুসল্লি। প্রধান
অতিথি ও অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষন হিসেবে হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বুগীর সিদ্দিকিয়া দরবার শরীফের পীর আলহাজ্ব আবুল বাশার সাহেব।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন “কোরআনের মাহাত্ব মর্যাদা আমাদের বোঝে এর কদর করতে হবে। হাফেজগণ পবিত্র কোরআনের মাধ্যমে বাংলাদেশের সম্মানকে অনেক উঁচ‚তে তুলে ধরেছেন। তাদের কে আরও বৃহৎ পরিসরে সম্মাননা দেয়া প্রয়োজন।”

 

 

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশী হাফেজগণ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঈর্ষনীয় সাফল্য অর্জন করে চলেছে। নি:সন্দেহে তারা দেশের গৌরব। কোরআনের এই আলোকবর্তিকা কিশোর ও তরুন হাফেজদের প্রতিনিয়ত অনুপ্রেরনা প্রদানই মিলিনিয়ান ব্যাচের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। মেধাবী এসব শিক্ষার্থীদের অনুপ্রানিত করতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে হিফজ সমপন্নকারীদের সম্মাননা সরূপ ক্রেষ্ট, এককালীন মেধাবৃত্তি ও অভিনন্দনপত্র তুলে দেওয়া হয়। এছাড়াও শিক্ষাঙ্গনে সবুজায়নকে উৎসাহিত করতে গ্রামের প্রতিটি হেফজ প্রতিষ্ঠানে ফলদ ও বনজ বৃক্ষরোপনের কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়।
অনুষ্ঠানের সভাপতি আলহাজ্ব শাহজাহান ভ‚ইয়া (শাজু) সাহেবের সমাপনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সকল আনুষ্ঠানিকতার ইতি ঘটে।

তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন “আমাদের অনেক দিনের স্বপ্ন ছিল গ্রামের প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে হেফ্জসম্পন্নকারী কোরআনের পাখিদেরকে একসাথে সম্মাননা দেওয়া। মিলিনিয়াম ব্যাচ এই উদ্যোগে এগিয়ে এসেছে এজন্য তাদেরকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ এবং ধারাবাহিকতা বজায় রাখার অনুরোধ করেন।”

উল্লেখ্য যে, এ বছরের শুরুর দিকে বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়নের পাশাপাশি দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে একযোগে কাজ করার ব্রত নিয়ে মিলিনিয়াম ব্যাচের সদস্যরা ঐক্যবদ্ধভাবে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে।

[Sassy_Social_Share total_shares="ON"]