344 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

কুমিল্লার তিতাসে ১৮৪ পিস বিয়ার আটক

  • 28
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    28
    Shares

হালিম সৈকত: কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মাছিমপুর বাজারে স্কুল মার্কেট থেকে ১৮৪ পিস বিয়ার উদ্ধার করেছে তিতাস থানার চৌকষ এসআই মোঃ বিল্লাল হোসেন।

৮ আগস্ট রাত ১১ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তিনি মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউশন এর মার্কেটে অভিযান চালিয়ে একটি দোকান থেকে ৪ টি বস্তায় মোড়ানো  বিয়ারগুলো উদ্ধার করেন।
তালাবদ্ধ অবস্থায় থাকলেও পরে বাজার কমিটির সভাপতি আঃ বাতেন সরকার রেনু মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাসান বশিরের নির্দেশে তালা ভেঙ্গে মালিকবিহীন বিয়ারগুলো জব্দ করা হয়। পরে অভিযানে যোগ দেন তিতাস থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ সহিদুল ইসলাম, এসআই মধুসূদন,  এসআই সুমন পাটোয়ারী ও এএসআই সারওয়ার হোসেনসহ সঙ্গীয় ফোর্স।  পরে জানা যায়, ওমর আলীর চা স্টলের পাশের দোকানটি স্কুলকর্তৃপক্ষ থেকে চাবি নিয়ে কোন প্রকার ডিড ছাড়াই ব্যবহার করছেন উক্ত স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মোঃ মুজিবুর রহমান।  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ মাহফুজুর রহমান চৌধুরী ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মনসুর আলী মেম্বার।  তারা বলেন,  দোকানের চাবি মুজিবুর রহমানের কাছে ছিল, তিনি দোকানে কি ব্যবসা করেন তা জানিনা।
রাতে মুজিবুর রহমানকে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি দোকানে আসেন নি। তিনি বলেন, আমি দূরে আছি।
এই বিষয়ে তিতাস থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ সহিদুল ইসলাম বলেন,  এই বিয়ার ব্যবসার সাথে কারা জড়িত তা তদন্ত সাপেক্ষে খুঁজে বের  করা হবে এবং মামলার প্রক্রিয়া  চলবে।
 কয়েক বছর আগেও স্কুলের পাঠাগারে বিয়ার ব্যবসার অভিযোগ উঠেছিল। তখন সংবাপত্রে নিউজ হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে এলাকায় তোলপাড় হয়েছিল। আজ পানির মত পরিষ্কার ও সত্য প্রমাণিত হলো স্কুলের স্থাপনা ব্যবহার করে মাদকের ব্যবসা চল!
তিতাস উপজেলার মাছিমপুর গ্রামে দীর্ঘদিন যাবত একটি চক্র  এই মাদকের ব্যবসা করে আসছে।
বিভিন্নসূত্র থেকে জানা যায়, মাদকের এই চালান আসে ঢাকা, কুমিল্লা,  চট্টগ্রাম ও টেকনাফ থেকে।  মাদকচক্রটি কারা তা সকলে অবগত হলেও তারা এতই শক্তিশালী যে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলার মত সাহস কেউ করে না। তবে এলাকাবাসি চান মাছিমপুরসহ তিতাস মাদকমুক্ত হোক। তারা কুমিল্লা-২ ( তিতাস হোমনা) আসনের এমপি সেলিমা আহমাদ মেরী,  উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ পারভেজ হোসেন সরকারের  ও তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ মোহাম্মদ আহসানুল ইসলামের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
  • 28
    Shares