774 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

ছাত্রসেনা ও যুবসেনার সাবেক সভাপতি অধ্যাপক এম এ মোমেন এর স্ত্রীর মৃত্যুতে সুন্নী অঙ্গনে শোকের ছায়া।

  • 265
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    265
    Shares

মুহাম্মদ রফিকুল ইসলামঃ-

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা-যুবসেনার সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ইসলামী ফ্রন্টের যুগ্ম-মহাসচিব আলহাজ্ব অধ্যাপক এম এ মোমেন এর সহধর্মিণী জাহানারা চৌধুরানী (৫০) গতরাত ১১ঃ৩০ ঘটিকায় ইন্তেকাল করিয়াছেন (ইন্না-লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্বামী ও ২ ছেলে সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। অধ্যাপক এম এ মোমেন এর সহধর্মিণীর মৃত্যুতে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা ও ছাত্রসেনার পক্ষ থেকে পৃথকভাবে বিবৃতি প্রদান করা হয়েছে। বিবৃতিতে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এম এ মান্নান বলেন, বৈশ্বিক এ চরম ক্রান্তিকালে অধ্যাপক এম এ মোমেনের স্ত্রীর ইন্তেকালে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। তিনি বলেন, মরহুমা জাহানারা চৌধুরী অধ্যাপক এম এ মোমনের দীর্ঘ সাংগঠনিক জীবনের ধারাবাহিক সফলতায় যে ভাবে পাশে থেকে শক্তি, সাহস ও প্রেরণা যুগিয়েছেন তার জন্য মরহুমা চিরদিন স্বরণীয় হয়ে থাকবে।

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব আলহাজ্ব এম এ মতিন বলেন, মরহুমা জাহানারা চৌধুরানী একজন উচ্চ শিক্ষিত ও মহিয়সী নারী ছিলেন। তিনি চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। সুন্নীয়তকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদানে অধ্যাপক এম এ মোমন কে সমর্থন, মানসিক শক্তি রাজনৈতিক ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নে মরহুমা জাহানারা চৌধুরানীর ত্যাগ ও তার অবদান অতুলনীয়। বিশেষত সুন্নীয়তের দাওয়াত পৌঁছাতে তাঁর অকুণ্ঠ সমর্থন অকুতোভয় সৈনিকের ভূমিকা পালন চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। মরহুমা জাহানারা চৌধুরানী ও তাঁর পরিবারের প্রতি সুন্নী অঙ্গন নিঃসন্দেহে চিরকাল ঋনী হয়ে থাকবে।

সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব আলহাজ্ব স.উ.ম আবদুস সামাদ এক টুইট বার্তায় শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন। টুইট বার্তায় তিনি বলেন, অধ্যাপক এম এ মোমেন আমার দীর্ঘদিনের সহযোদ্ধা। তার সহধর্মিণীর আকস্মিক মৃত্যুতে আমি মর্মাহত। বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আতের সাংগঠনিক কাজে আমরা একই সাথে দীর্ঘদিন যাবত কাজ করে আসছি। অধ্যাপক এম এ মোমেন বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ। ১৫/২০ দিন পূর্বে তার শশুর ও ইন্তেকাল করেছেন। এমতাবস্থায় তার স্ত্রীর মৃত্যু তাকে একটি অসহনীয় শোকে পরিণত করেছে। টুইট বার্তায় তিনি অধ্যাপক এম এ মোমেন যেন তার সহধর্মিণী কে হারানোর ব্যাথা ধৈর্যের সাথে মোকাবেলা করতে পারেন ও তার সহধর্মিণী কে আল্লাহ যেন জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন এই কামনায় মহান আল্লাহ তায়ালার নিকট প্রার্থনা করেন।

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের যুব সংগঠন যুবসেনার পক্ষ থেকে অধ্যাপক এম এ মোমেনের সহধর্মিণীর আকস্মিক মৃত্যুতে বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে বাংলাদেশ ইসলামী যুবসেনার সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম মাহমুদ ভূঁইয়া মানিক ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম গভীর শোক প্রকাশ করেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করে বলেন, বৈশ্বিক এ চরম ক্রান্তিলগ্নে মরহুমা জাহানারা চৌধুরানীর ইন্তেকালে সুন্নী অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এমন বিপর্যয় মুহুর্তে তাঁর মৃত্যু পরিবারের সদস্যদের উপর আকাশ পরিমাণ চাপ বয়ে এনেছে। সাবেক যুবনেতার স্ত্রীর মৃত্যুতে যুবসেনা পরিবার গভীর শোকাহত। অধ্যাপক এম এ মোমনের সাংগঠনিক সফলতায় মরহুমা জাহানারা চৌধুরানী ও তার পরিবার কে সুন্নী অঙ্গন চিরকাল শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের ছাত্র সংগঠন ছাত্রসেনার পক্ষ থেকে ও বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে ছাত্রসেনার সভাপতি জিএম শাহাদত হোসাইন মানিক ও সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসাইন তুষার অধ্যাপক এম এ মোমেনের সহধর্মিণী মরহুমা জাহানারা চৌধুরানীর মৃত্যুতে শোক সন্তপ্ত পরিবার বর্গের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে বলেন, মরহুমা জাহানারা চৌধুরানী শুধু একজন গৃহিণী ছিলেন না। তিনি রাজনীতিবিদ ও ছিলেন। মরহুমা জাহানারা চৌধুরানী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিভাগের ২৩তম ব্যাচের ছাত্রী ছিলেন। জাহানারা চৌধুরানী ছাত্রজীবনে এ মোমেন ভাই কে খুব কাছ থেকে রাজনৈতিক পরামর্শ দিতে পেয়েছেন। তারা বলেন, অধ্যাপক এম এ মোমেন ভাই এর ছাত্র রাজনীতির কথা বলে শেষে করা যাবেনা। তিনি কেন্দ্রীয় পরিষদের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পূর্বে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতির দ্বায়িত্ব সহ ছাত্রসেনার বিভিন্ন স্তরের দ্বায়িত্ব পালন করেন।

এছাড়াও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা ও ছাত্রসেনার অসংখ্য নেতৃবৃন্দ তাদের নিজনিজ ফেইসবুক টাইমলাইনে অধ্যাপক এম এ মোমেন এর সহধর্মিণী মরহুমা জাহানারা চৌধুরণীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন।

  • 265
    Shares
  • 265
    Shares