289 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

তেজপাতায় স্বাস্থ্যোজ্জল চুল

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পথিক রিপোর্ট: রান্নার স্বাদ বাড়াতে তেজপাতার জুড়ি নেই সে কথা আমরা সবাই জানি। আমাদের রান্নাঘরে তেজপাতা একটি অপরিহার্য উপাদান। এটি দামেও বেশ সস্তা। দশ টাকা বা বিশ টাকার তেজপাতায় চলে যায় বহুদিন। খাবারে স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি সৌন্দর্যচর্চায় বিশেষ করে চুলের যত্নে তেজপাতার রয়েছে দারুণ কার্যকারিতা। আর সবচেয়ে ভালো বিষয় এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বা ক্ষতিকারক দিক নেই বল্লেই চলে। ঈদের নানা ঝক্কি ঝামেলায় হয়তো চুলের খুব একটা যত্ন নেওয়া হয়ে ওঠেনি। আসুন জেনে নেই হাতের কাছেই থাকা তেজপাতা দিয়ে, কিভাবে খুব সহজেই স্বাস্থ্যোজ্জল চুল পাওয়া সম্ভব তা জেনে নেই।

মাথার খুশকি দূর করতে:

বিভিন্ন কারণে আমাদের মাথায় খুশকির আক্রমণ হয়। খুশকিতে চুলের স্বাস্থ্যহানি হয়। এবং চুল তার স্বাভাবিক সৌন্দর্য হারায়। তেজপাতার অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাংগাল উপাদান খুশকি দূর করতে সাহায্য করে। তিন থেকে চারটি তেজপাতা ভালো করে গ্রাইন্ডার দিয়ে গুড়ো করে নিতে হবে। গ্রাইন্ডার না থাকলে শিলপাটাতেও বেটে নিতে পারেন। এরপর পরিমাণ মত নারকেল তেলের সাথে মিশিয়ে হালকা গরম করে মাথার তালুতে ভালো ভাবে ম্যাসেজ করতে হবে। এরপর একটি তোয়ালে গরমপানিতে ডুবিয়ে পানি নিংড়ে নিয়ে তা দিয়ে মাথা ভালো করে পেচিয়ে নিতে হবে। এভাবে ৩০মিনিট রেখে তারপর মাথা ধুয়ে ফেলতে হবে। এটি সপ্তাহে একবার করে নিয়মিত করলে মাথা থাকবে খুশকিমুক্ত।

প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে:

রুক্ষ চুলে প্রাণ ফিরিয়ে আনতে প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে তেজপাতার জুড়ি নেই। আধা লিটার পানিতে চার-পাঁচটি তেজপাতা দিয়ে ফুটিয়ে নিন। ফুটানো হয়ে গেলে একটি পাত্রে ঢেলে ঠাণ্ডা করে নিন এবং তেজপাতা গুলো ছেকে আলাদা করে ফেলে দিন। চুলে শ্যাম্পু করার পর এই পানি চুলে মাখিয়ে পাঁচ থেকে দশ মিনিট অপেক্ষা করুন এবং পরিস্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে চুল প্রাকৃতিকভাবেই কন্ডিশনিং হয়। এবং রুক্ষতা দূর করে চুল হয় ঝলমলে এবং মসৃণ।

চুল পড়া বন্ধ করতে:

তেজপাতার নির্যাস মাথার তালুর অতিরিক্ত তেল নিঃসরণ নিয়ন্ত্রণ করে। এবং চুলের গ্রন্থিকোষগুলোতে বাড়তি শক্তির যোগান দেয়। ফলে চুলের বৃদ্ধি আরো দ্রুত হয়। এজন্যে তেজপাতা পানিতে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে তা দিয়ে চুল ধুতে পারেন। তেজপাতার পানি ব্যবহারের কিছুক্ষন পর অবশ্যই পরিস্কার পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিতে হবে। চুল পড়া বন্ধ করতে প্রতিদিন এই তেজপাতার পানির ব্যবহার করা যেতে পারে।

মাথার চুলকানি কমাতে:

অনেক সময় মাথার তালুতে বিভিন্ন রকম ফাংগাল বা ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন দেখা দেয়। এতে মাথার ত্বকে চুলকানি, খুশকি বা র‍্যাশ এর মতো সমস্যা তৈরি হতে পারে। এই ধরণের সমস্যায় নিয়মিত তেজপাতার পানি ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে আধা লিটার পানি তেজপাতা সহ ৩/৪ মিনিট ফুটিয়ে, ঠাণ্ডা করে নিতে হবে। এই পানি নিয়মিত মাথার তালুতে ব্যবহার করলে ফাংগাল বা ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন দুর হয়। তবে এই সমস্যা গুরুতর আকার ধারণ করলে বা দীর্ঘদিনব্যাপী হলে ঘরোয়া চিকিৎসার উপর নির্ভর না করে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়াই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।