564 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

নবীনগরে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া সারু মিয়ার লাশ দাফন সম্পন্ন

  • 141
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    141
    Shares

সায়্যিদ আহমাদ রাফি:  ০২/০৭/২০২০ খ্রিঃ ব্রাহ্মনবাড়ীয়ার নবীনগর উপজেলার নূরনগরে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্বেচ্ছায় দাফন কাফন করছেন নবীনগর প্রশাসন কর্তৃক অনুমোদিত মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালী ও তার টিম।গতকাল ০১/০৭/২০২০ তারিখে নবীনগর উপজেলার দাপুনিয়া গ্রামের মৃত আরব আলীর ছেলে সারু মিয়া করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ায় মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালীর নেতীত্বে মরহুমের লাশ কাফন দাফন সম্পন্ন করা হয়। একদিকে করোনার মৃত্যুর ভয়ে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির পাশে কেউ আসছে না, এমনকি আত্মীয় স্বজনও অন্যদিকে মানবতার অগ্রদূত হয়ে মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির কাফন দাফন কাজ সম্পন্ন করার জন্য উদার মানবতার পরিচয় দিলেন মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালী ও তার টিম। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া মরহুম সারু মিয়ার লাশ কাফন দাফন কাজে মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালীর নেতৃত্বে স্বেচ্ছায় অংশগ্রহন করেন তার টিমের সদস্য হাফেজ সাইদুর রহমান,হাফেজ মাহমুদ বিন নজরুল, হাফেজ নজরুল ইসলাম,ইলিয়াস আহমেদ সুমন,মেহেদী হাসান মাহবুব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারি ইনচার্জ আব্দুস সালাম প্রমুখ। এটা মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালী ও তার টিমের দেওয়া প্রথম জানাযা। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া সারু মিয়ার লাশের গোসল ও দাফন কাফন করেছেন এই টিম।

 

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনির বলেন, মায়ের মৃত্যুতে যেখানে সন্তানরা এগিয়ে আসেন না সেখানে মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালীর নেতৃত্বে একদল যুবক আলেম ঝড় বৃষ্টি ও জীবনের পরোয়া না করে এই মানবিক কাজে এগিয়ে আসার জন্য আমি উপজেলাবাসীর পক্ষ থেকে তাদের এই কর্মের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। করোনাকালীন সময়ে এমন মানবিক কাজের ভূয়সী প্রসংশা করে উপজেলা করোনা ভাইরাস বিস্তার প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বলেন, বিনা পারিশ্রমিকে এমন মানবিক কাজ সত্যি বিরল। প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা তাদের সুরক্ষার কথা চিন্তা করে পিপিই, মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস, আই গগলস, ও গাম বুট (জুতা) প্রদান করেছি। আমি আশা করবো তাদের এই মহৎ কাজে উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ সার্বিকভাবে সহযোগিতা করবেন। মাওলানা মোশাররফ হোসেন জালালী বলেন, প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় আমরা এই কাজ সম্পন্ন করছি। সকাল ১১.৩০মিনিটে ইউ এন ও স্যার আমাকে ফোনে এই দাফন কাজ পরিচালনার দায়িত্ব দেন।পরে বিকাল ৪টায় আমি সহ আমার টিমের আট জন সদস্যকে নিয়ে গন্তব্য স্থলে উপস্থিত হয়।এই দূরসময়ে লাশের পাশে বাবা-মা, ভাই-বোন, স্বামী কেউ থাকেনা।

 

এটা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। আমাদের মানবিক দায়িত্ব, একটা মানুষ যখন বিপদে থাকবে তার পাশে দাঁড়ানো। যে কোন ধর্মের হোক আমাদের টিম তাদের স্বজনদের পাশে থেকে তাদের ধর্মের নিয়ম অনুযায়ী আমরা এই কাজ সম্পন্ন করব। ইতিমধ্যে আমরা ১ টি লাশ দাফন করেছি। এমন কি আমাদের কোনো সদস্য আল্লাহ না করুক, যদি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করে, তারপরও আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে ইনশা-আল্লাহ।

  • 141
    Shares