265 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

নবীনগর পূর্বাঞ্চলে গরু চুরি যেন থামছেই না! অভিযোগ না থাকায় নিরব প্রশাসন

  • 63
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    63
    Shares

সায়্যিদ আহমাদ রাফিঃ  ব্রাহ্মণবাড়ীয়া নবীনগর উপজেলা এখন গরু চোরদের অন্যতম নিরাপদ স্থান। এমন কোনো রাত নেই যে রাতে গরু চুরি হয় না এই উপজেলায়। আসছে কোরবানি ঈদ সামনে রেখে করোনার মধ্যেও নবীনগর পূর্বাঞ্চলে গরু চুরি যেন বন্ধ হচ্ছে না! এলাকাজুড়ে গরু চোরের উৎপাত বহুগুণে বেড়েই চলেছে। আজ ২১ জুলাই উপজেলার পূর্বাঞ্চল নাটঘর গ্রামের বিল্লাল মিয়ার অতি কষ্টে পালিত ১টি গরু চুরি হয়, যার বাজার মূল্য প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। সম্প্রতি ১৯ জুলাই রবিবার উপজেলার বিদ্যাকুট ইউনিয়নের ভৈরবনগর গ্রামে গরু চুরির হিড়িক লাগে। একি রাতে একাধীক বাড়ি থেকে ৮ টি ছোট-বড় গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে। চুরি হওয়া গরু গুলোর আনুমানীক বাজার মূল্য প্রায় ৭ থেকে ৮ লক্ষ টাকা। ভৈরবনগর গ্রামের মো: জিয়াউর রহমান মেম্বারের বাড়ির গোয়াল ঘর থেকে ১টি গরু, মুক্তার হোসেনের ২টি, বাচ্ছু মিয়ার ৩ টি, ফারুক মিয়ার ২ টি গরু সহ মোট ৮টি গরু চুরি করে নিয়ে যায়।

উল্লেখ গত মে (রমজান) মাসে উপজেলার বিদ্যাকুট ইউনিয়ন সেমন্তঘর গ্রামের হাবিবুর রহমানের প্রায় ৫ লক্ষ টাকার গরু চুরি হয়! শিবপুর ইউনিয়নের শাহারপাড় গ্রামে দু’মাস আগে ২ লক্ষ টাকার গরু চুরি হয়। শিবপুর কপালি পাড়ার দুইটি গরু চুরি হয় যার মূল্য প্রায় ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। এভাবেই উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে মাসের পর মাস গরু চুরির ঘটনা ঘটছে।

নবীনগর পূর্বাঞ্চল নূরনগর এলাকায় গরু চোর চক্রটি দিনেদিনে ভয়ংকর আকার ধারণ করেছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। এ নিয়ে পুরো উপজেলাজুড়ে এখন চোরাতাংঙ্কে নির্ঘূম রাত কাটাচ্ছে সাধারণত মানুষ। উপজেলায় বছরে শত শত গরু চুরি হলেও চোরদের যথাযথ ভাবে আইনের আওতায় না আনার কারণে চুরির সংখ্যা বাড়ছেই। বিশেষ করে নবীনগর পূর্বাঞ্চল নূরনগরের ৬ ইউনিয়নে গরু চুরির সংখ্যা বেশি। যেখানে প্রতিদিন কম বেশি গরু চুরি হয়। গ্রামঞ্চলের খেটে খাওয়া দিন-মজুরের একমাত্র সম্বল গরুটি চুরি হওয়ার কারণে তাদের পরিবারের নেমে আসছে দুঃখ কষ্ট। অর্থনৈতিক ভাবে হচ্ছে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত। শিক্ষা ও জ্ঞান বুদ্ধি কম থাকার কারনে এই সাধারণ মানুষগুলো চোরদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করার সাহসও পাইনা।

তাই রাতে পুলিশ টহল বাড়ানোর পাশাপাশি সংবদ্ধ গরু চোরদের গ্রেফতারে এলাকাবাসী প্রশাসনের হস্থক্ষেপ কামনা করেন। নবীনগর থানার নবাগত ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর থানায় যোগদানের একদিন পর ৬ জুলাই নবীনগর পূর্বাঞ্চল নূরনগর এলাকা থেকে ৫ জন গরু চোরকে গ্রেফতার করা হয়। উপজেলায় গরু চুরির ঘটনার সম্পর্কে ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর বলেন আমরা এখন পর্যন্ত সম্প্রতি ঘটে যাওয়া গরু চুরির বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ পায়নি এবং আমাদের কেউ অবগত করেনি। তথ্য পেলে চোরদের আইনের আওতায় আনতে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

  • 63
    Shares