336 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

নিজেরই পুরনো ছবি না চিনে স্বামী পরকীয়ায় লিপ্ত সন্দেহে কোপালেন স্ত্রী

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কের সবচেয়ে বড় শত্রু সন্দেহ। ছোট ছোট অবিশ্বাসের পাথর জমা হতে হতে কখন যে সন্দেহের কঠিন পর্বতে পরিণত হয়, কেউ বলতে পারে না। এর ফলও হয় মারাত্মক। যেমন নিছক সন্দেহের বশে একটি ছবি দেখে স্বামীকে ছুরি দিয়ে কোপালেন মেক্সিকোর লিওনোরা নামের এক নারী। পরে জানা গেল, ছবিটি আদতে তারই যৌবন বয়সের ছিল। ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে হতবাক পুলিশও।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সন্দেহের বশেই স্বামীর মোবাইল নিয়মিত চেক করতেন মেক্সিকোর ওই নারী। আচমকা সেখানে অল্প বয়সের এক নারীর সঙ্গে স্বামীর ছবি দেখতে পান। এতেই ক্ষেপে ওঠেন। রান্নাঘরের ছুরি নিয়েই স্বামী জুয়ানের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। এলোপাথাড়িভাবে কোপ দিতে থাকেন। রক্তাক্ত অবস্থাতেও কোনোমতে স্ত্রীর হাত থেকে ছুরি ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হন জুয়ান। তারপরই প্রকাশ্যে আসে আসল সত্য। জুয়ানই লিওনোরাকে জানান, ছবির নারী আসলে তিনিই (লিওনোরা)। ছবিটি সেই সময়ের যখন তারা প্রথম প্রথম প্রেম করতে শুরু করেছিলেন।

জুয়ানের কথা প্রথমে কিছুতেই বিশ্বাস করতে চাননি লিওনোরা। কিন্তু ঠান্ডা মাথায় কথা বলে তাকে ক্ষান্ত করেন জুয়ান। ইতোমধ্যেই, তাদের চিৎকার শুনে পুলিশে খবর দিয়েছিলেন এক প্রতিবেশী। সেই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায় মেক্সিকো পুলিশের কর্মকর্তারা। জুয়ানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। আর লিওনোরাকে গ্রেফতার করা হয়।
নিজের ছবি নিজেই চিনতে পারলেন না লিওনোরা? এও কি সম্ভব? পুলিশের এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে জুয়ান জানান, পুরনো ছবিটি একটু এডিট করে ফোনে স্টোর করেছিলেন তিনি। সেই সময় এমনিতেই লিওনোরা অনেকটা রোগা ছিলেন। তাই নিজের ছবি নিজেই চিনতে পারেননি। স্ত্রীর বিরুদ্ধে জুয়ান এখনও পর্যন্ত
কোনো অভিযোগ করেননি। তবে লিওনোরা মানসিক রোগে আক্রান্ত কি না, তা জানতে মনোবিদের সাহায্য নিচ্ছে পুলিশ।