320 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

বরগুনায় লঞ্চে অনিয়ম, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার বিক্রি

  • 31
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    31
    Shares

এস এম ফোরকান মাহামুদ, বরগুনা :: বরগুনায় কোভিড -১৯ সংক্রমণ রোধে জেলার বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহর নির্দেশক্রমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে। বিকেল ৩.৩০ মিনিটের সময় বরগুনা নদী বন্দর সহ পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আবু বক্কর সিদ্দিক। ভোক্তা অধিকার আইন, ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রির দায়ে ১৪ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। এসময় নদী বন্দরে থাকা ঢাকা গামি পূবালী-১ লঞ্চের খাবার হোটেলে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং পঁচা মাছ বিক্রি করার দায়ে হোটেল মালিক কে ভোক্তা অধিকার আইনে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।এছাড়াও লঞ্চের যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা দেয় এবং বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে যাত্রীদের জন্য লাইফ জ্যাকেটের ব্যবস্থা নেই বলে লঞ্চের সুপারভাইজার এনায়েত হোসেন কে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। যাতে করে পরবর্তীতে যাত্রীদের জন্য লাইফ জ্যাকেটের ব্যবস্থা করা হয়। এরপরে বরগুনা পৌর মার্কেট এলাকায় ঔষধের দোকানে অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন দোকানে মেয়াদ উত্তীর্ণ ও ভেজাল ঔষধ বিক্রির দায়ে ফার্মাসিস্টদের বিভিন্ন ধারায় অর্থদণ্ড করেছে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট। এসময় বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, মাননীয় জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ স্যারের নির্দেশক্রমে বরগুনা সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে লঞ্চ মনিটরিং করা হয়। কোভিড ১৯ সংক্রমণ রোধে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও লঞ্চের খাবার হোটেলে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও নষ্ট মাছ বিক্রির দায়ে একজনকে অর্থদন্ড করা হয়েছে। এছাড়া বাজার মনিটরিং করে ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রির দায়ে কয়েকজন দোকানদারকে বিভিন্ন ধারায় অর্থদণ্ড করা হয়েছে। তবে আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

  • 31
    Shares
  • 31
    Shares