68 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

বসুন্ধরার এমডি: কথিত একটি ‘আত্মহত্যার’ মিডিয়া কভারেজ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কথিত এক ‘আত্মহত্যার’ ঘটনা নিয়ে বাংলাদেশে গতকাল থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় চলছে, আর সেই সঙ্গে তীব্র বিতর্ক শুরু হয়েছে এই ঘটনার মিডিয়া কভারেজ নিয়ে।

গত সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকার অভিজাত এলাকা গুলশানের এক ফ্ল্যাটে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় এক কলেজ পড়ুয়া তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় নিহতের বোন বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় আত্মহত্যার প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে আসামী করা হয় বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এক শিল্প গোষ্ঠী বসুন্ধরার ম্যানেজিং ডিরেক্টর সায়েম সোবহান আনভীরকে।

ঘটনাটি প্রকাশ পাওয়ার পর হতে এ পর্যন্ত যেভাবে গণমাধ্যমে এই ঘটনার খবর প্রকাশিত হয়েছে, কিংবা যেভাবে পুরো ঘটনাটির খবর কোন কোন গণমাধ্যমে একেবারে চেপে যাওয়া হয়েছে, তা নিয়ে তীব্র বিতর্ক চলছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

তবে সাংবাদিকদের মধ্যে কয়েকজন সমালোচনার সাথে দ্বিমত পোষণ করে বলেছেন, প্রত্যেকটি মিডিয়া তাদের ”বেস্ট জাজমেন্ট” অনুসারেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যেটা সবার পছন্দ নাও হতে পারে।

বসুন্ধরা গ্রুপ শুধু বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এক ব্যবসায়ী গোষ্ঠীই নয়, তারা একই সঙ্গে বাংলাদেশে কয়েকটি সংবাদপত্র, অনলাইন পোর্টাল, টিভি চ্যানেল এবং এফএম রেডিও স্টেশনের মালিক। বাংলাদেশের রিয়েল এস্টেট ব্যবসায় বসুন্ধরা গ্রুপই সবচেয়ে বড় বলে মনে করা হয়। এর পাশাপাশি এই গ্রুপের ব্যবসায়িক সাম্রাজ্য বিস্তৃত বিদ্যুৎ, সিমেন্ট, শিপিং, এয়ারলাইন্স, ফুড এ্যান্ড বেভারেজ- এরকম নানা ক্ষেত্রে।

বসুন্ধরার মালিকানাধীন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আছে বাংলাদেশ প্রতিদিন, কালের কণ্ঠ এবং দ্য সান- এই তিনটি দৈনিক পত্রিকা। অনলাইন পোর্টাল বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোরও তাদের মালিকানাধীন। এছাড়া এই গ্রুপের রয়েছে নিউজ টোয়েন্টিফোর নামের টিভি চ্যানেল এবং ক্যাপিটাল এফএম নামের রেডিও স্টেশন।

এরকম একটি বিশাল এবং প্রভাবশালী শিল্প গোষ্ঠীর ম্যানেজিং ডিরেক্টরের বিরুদ্ধে এক তরুণীর সঙ্গে কথিত সম্পর্কের কারণে তাকে ”আত্মহত্যার প্ররোচনা” দেয়ার অভিযোগটি গণমাধ্যমে যেভাবে এসেছে, কিংবা কোন কোন ক্ষেত্রে একেবারেই আসেনি, তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

বাংলাদেশের অত্যন্ত প্রভাবশালী এক ব্যবসায়ী গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কের কারণেই এই ঘটনার মিডিয়া কভারেজ প্রভাবিত হয়েছে কিনা সে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

সুত্র:বিবিসি