764 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

বাটাগ্রুপ এর জন্ম হয়েছে- মানুষের প্রয়োজনে

২০০৯ ইং সাল থেকে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহর থেকে প্রথম শুরু হয়। বর্তমানে এ
প্রতিষ্ঠানটির ১০০টি কোম্পানী রয়েছে। সবগুলো প্রতিষ্ঠানের পন্য, মানবাধিকার সংস্থা, পর্যবেক্ষণ
সংস্থা, তদন্ত সংস্থা, আইনী সংস্থা ও ১টি দৈনিক পত্রিকা নিয়ে চলমান রয়েছে দেশ ও বিদেশে।
দ্রুত গতি সম্পন্ন এ প্রতিষ্ঠানটি প্রতি বছর ৬৪টি জেলায় অসহায় গরীব ও বিভিন্ন এনজিও,
পেশাজীবি সংগঠন, সাংস্কৃতিক সংগঠন, শ্রমিক সংগঠন সহ প্রায় দুই লক্ষ মানুষকে প্রতি বছর
কোটি কোটি টাকার অনুদান দিয়ে থাকেন। যা বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় ত্রাণ বিতরণের
বিষয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, হচ্ছে এবং হবে। এ প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা
পরিচালক ও সিইও- এস.এম. পবিত্র আল ইবাদত (শাহ আলম) ও পরিচালক : নার্গিস আলম।
অনেক প্রতিকূলতার মধ্যেও অনেক কষ্ট করে ধীরে ধীরে গড়ে উঠেছে এ প্রতিষ্ঠানটি। এ
প্রতিষ্ঠানটির সকল কার্যμম করতে গিয়ে চেয়ারম্যান এর “চোঁখের পানির সাথে সাগরের পানির
মধ্যে কোন পার্থক্য ছিল না”। প্রতিদিন ভোর ৪টা থেকে রাত ২টা পর্যন্ত চলে একটানা পরিশ্রম।
নেই কোন ঘাটতি। বাটাগ্রুপ এর সকল পন্যগুলো, অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো ও সবই মানুষের
প্রয়োজনে। শত ব্যস্ততার মাঝেও তিনি এমবিএ পাশ করে ব্যবসাকে ঠিক রেখে পড়াশোনাও চালিয়ে
গেছেন। বেশ সফলতার সহিত পাশ করেন। পরিশ্রমের অপর নাম সুখ। সুখ কিনতে গেলে রোদে
পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে, কাঁদামাটি, ময়লা কাপড়চোপড় নিয়ে সর্বদা চলতে হয়। তার নেই কোন
অহংকার। সে একজন শ্রমিক। শ্রমিক হিসেবেই, সে গর্ব করে। প্রত্যেক পুরুষের কাছেই যেমন
নারী ভোগের সামগ্রী ঠিক তেমনি প্রত্যেক ব্যবসায়ীদের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে- মুনাফা। মুনাফা ব্যতিত
ব্যবসা কেউ করে না, তাই মুনাফাকে সামনে রেখেই ব্যবসা চালিয়ে যেতে হয়। বিশ্বের সকল মানুষ
যাতে অতি কম মূল্যে বাটা গ্রুপ এর মানসম্পন্ন পণ্য সহ অন্যান্য সকল সুযোগ-সুবিধা পায়, সে
লক্ষ্যেই বাটা গ্রুপ গড়ে উঠেছে এবং কাজ করে যাচ্ছে। বাটা গ্রুপ যেকোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ
মোকাবেলায় ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, নগদ টাকা সহ বাসস্থান তৈরী করণ, রিকসা ও ভ্যান বিতরণ,
সেলাই মেশিন বিতরণ, লুঙ্গি ও কাপড় বিতরণ, খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে আসছে নিয়মিত প্রতি
বৎসর। এ কার্যμম ছিল, আছে এবং চলমান থাকবে।

[Sassy_Social_Share total_shares="ON"]