540 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

বাড়ির ছাদে কঙ্কাল, ছেলেকে খুনের অভিযোগ মায়ের বিরুদ্ধে

  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    10
    Shares

বড় ছেলেকে অপহরণ করে খুন করেছেন তার স্ত্রী। কলকাতার এক ব্যবসায়ীর এমন অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) বিকেলে তার স্ত্রীর পশ্চিমবঙ্গের সল্টলেকের বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। সেই তল্লাশিতে ওই বাড়ির ছাদ থেকে উদ্ধার হয়েছে প্রায় কঙ্কাল হয়ে যাওয়া পচাগলা একটি দেহ।

সল্টলেকের এ জে ব্লকের এই ঘটনায় পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, ওই কঙ্কালটি ব্যবসায়ীর বড় ছেলের। পারিবারিক বিবাদের জেরেই তাকে খুন করা হয়েছে এবং পরিবারের কোনো সদস্যই খুন করেছেন। ঘটনায় সন্দেহভাজনদের তালিকায় রয়েছেন ওই ব্যবসায়ীর স্ত্রী-ও। জেরার পর ওই ব্যবসায়ীর স্ত্রী এবং তাদের ছোট ছেলেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গোটা ঘটনায় তদন্তে নেমেছেন বিধাননগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের কর্তারা।

 

পুলিশ সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সকালে অনিল মাহেনসরিয়া নামে সল্টলেকের এক ব্যবসায়ী বিধাননগর (পূর্ব) থানায় তার বড় ছেলের নিখোঁজ হওয়ার অভিযোগ দায়ের করেন। অনিলের দাবি, স্ত্রী গীতা মাহেনসরিয়াই তাদের বড় ছেলে অর্জুন মাহেনসারিয়াকে অপহরণ করে খুন করেছেন।

কেন নিজের স্ত্রীর বিরুদ্ধে এই গুরুতর অভিযোগ করছেন, পুলিশকে তা-ও জানিয়েছেন অনিল। অনিল জানিয়েছেন, দাম্পত্য কলহের জেরে সম্প্রতি তারা আলাদা থাকতে শুরু করেছিলেন। বড় ছেলে ২৫ বছরের অর্জুনসহ আরো এক ছেলে ২২ বছরের বিদুর এবং ২০ বছরের মেয়ে বৈদেহীকে নিয়ে সল্টলেকের বাড়িতে থাকতেন গীতা। তিনি রাজারহাটের একটি আবাসনে একা থাকতেন।

অনিলের দাবি, গত ২৯ অক্টোবর তিনি জানতে পারেন যে ছেলে-মেয়েদের নিয়ে নিজের বাবার বাড়ি রাঁচী চলে গিয়েছেন গীতা। যদিও পরে খোঁজ নিলে জানা যায় যে বিদুর এবং বৈদেহী মায়ের সঙ্গে রাঁচীতে থাকলেও সেখানে অর্জুন নেই। অথচ স্ত্রী গীতা ফোনে তাকে জানিয়েছিলেন, তার সঙ্গেই বড় ছেলে রয়েছে। ওই ঘটনার পর থেকে স্ত্রীর উপর সন্দেহ হয় অনিলের। ছেলের খোঁজ শুরু করেন তিনি। তবে কোথাও অর্জুনের খোঁজ না পেয়ে অবশেষে বৃহস্পতিবার পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন।

অনিলের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, ১৯৮৮ সালে অনিল এবং গীতার বিয়ে হয়েছিলো। সল্টলেকের এ জে ব্লকের ২২৬ নম্বর বাড়িটি তার স্ত্রী গীতার মালিকানাধীন।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, এই ঘটনায় গীতাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন তারা। তবে বয়ানে অসঙ্গতি থাকায় তাকে গ্রেপ্তারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ওই দম্পতির ছোট ছেলে বিদুরকেও। ইতিমধ্যেই গীতার বিরুদ্ধে অপহরণের মামলা রুজু করা হলেও এই ঘটনায় বিদুরের ভূমিকা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গীতাকে গ্রেপ্তারের পরেই বৃহস্পতিবার বিকেলে সল্টলেকের এ জে ব্লকের বাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে সল্টলেকে স্ত্রীর বাড়িতে যান তদন্তকারীরা। স্থানীয়দের দাবি, মাস দুয়েক ধরেই ওই বাড়িটি তালাবন্ধ ছিলো। সেখানে কাউকে যাতায়াত করতে দেখেননি তারা। ওই বাড়ির তল্লাশিতে তার তিনতলার ছাদে একটি পূর্ণবয়স্ক মানুষের পচাগলা কঙ্কাল দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। একটি বিছানার চাদরে কঙ্কালটি মোড়া ছিলো বলে পুলিশ সূত্রে খবর।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, কঙ্কালটি কার বা সেটি কতো পুরোনো, ফরেন্সিক পরীক্ষার পরেই সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

কঙ্কাল উদ্ধারের পর বৃহস্পতিবার রাতেই ওই বাড়িতে যান ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা। তাদের একজন বলেন, বাড়ির ছাদ থেকে কঙ্কাল ছাড়াও একতলার একটি ঘরে পোড়া দাগ দেখতে পাওয়া গিয়েছে।

পুলিশের এক শীর্ষকর্তা জানিয়েছেন, ঘরে যজ্ঞ করলে যে রকম পোড়া দাগ তৈরি হয়, ওই দাগটি প্রায় সে রকম। এই ঘটনায় গীতাসহ পরিবারের বাকি সদস্যদের কোনো ভূমিকা রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পুলিশের আরো এক কর্তা বলেন, গীতা ছাড়াও বাকিদের জেরা না করা পর্যন্ত গোটা ঘটনা স্পষ্ট হবে না।

অভিযোগকারীর সঙ্গে কথা বলে এই ঘটনার জট খোলার চেষ্টা চলছে। ওই দম্পতির মধ্যে কেন অশান্তি হয়েছিলো, তা-ও জানার চেষ্টা করছেন তদন্তকারীরা।

গোটা ঘটনা ঘিরে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন উঠছে। কঙ্কালটি কার? যদি সেটি অর্জুনের হয়, তা হলে কবে এবং কীভাবে তার মৃত্যু হলো? কঙ্কালটি যদি অর্জুনের না হয়, তা হলে অর্জুন এই মুহূর্তে কোথায় রয়েছেন? তবে সল্টলেকের ওই বাড়ি থেকে পচাগলা দেহের কঙ্কাল উদ্ধার হওয়ায় পর পুলিশকর্তাদের একটি প্রশ্ন বেশি করে ভাবাচ্ছে, পচাগলা দেহের কঙ্কাল উদ্ধার হলেও আশপাশের মানুষজন কেন কোনো গন্ধ পেলেন না?

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

পথিকনিউজ/এইচ কে

 

  • 10
    Shares
  • 10
    Shares