655 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় উন্নয়নের বলি একটি খাল

এই অবকাঠামো তৈরির প্রথম পর্যায়ে আমার প্রতিবাদ করেছি। এডিবিকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে ছিলাম তারা যেন এই অবকাঠামো তৈরিতে সহযোগিতা না করে। পৌর মেয়র তার ব্যবসায়িক স্বার্থের জন্য এই অবকাঠামো গড়ে তুলে খালটিকে হত্যা করেছে।
  • 262
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    262
    Shares
ডেস্ক রির্পোট : ব্রাহ্মণবাড়িয়া টাউন খালকে নিয়ে একটি আবেগময় স্ট্যাটাস দিয়েছে সৈয়দ সাইফুল আলম শোভন নামে একটি ফেসবুক ইউসার। ব্রাহ্মণবাড়িয়া নেটিব ল্যাগুয়েজ গ্রুপে এই স্ট্যাটাস দেওয়া হয়।
স্ট্যাটাসটি নিচে তুলে ধরা হলো।
উন্নয়নের বলি আমার খাল। এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) , ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা, এলজিডি আর আমার বড় ভাই বুদ্ধিজীবিদের দায় নিতে হবে।
শহরের মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত খালটি সৌন্দর্যবর্দ্ধনের জন্য তত্বাবধায়ক সরকারের সময় বিপুল পরিমান অর্থ খরচ করা হয়। সৌন্দর্যবর্দ্ধনের নামে এক সময়ের জীববৈচিত্রপূণ খালটিকে হত্যা করা হয়েছে। এবছর গিয়ে দেখি খালটি প্রস্থে কয়েক ফিটের মধ্যে চলে এসেছে। খালের কোথাও তেমন পানি নেই। দূগন্ধ, ময়লার স্তুপ এই সকল দায় সকল বুদ্ধিজীবিদের।
স্কুল থেকে আসার পথে আমার বন্ধুরা বিজ্র থেকে লাফিয়ে পড়ত এই খালে। আমি ভীতু সাঁতার জানি না। তাই আমার দায়িত্ব ছিল বন্ধুদের ব্যাগ আর শার্টগুলো দেখে রাখার। কাজীপাড়ায় উচাপুল নামের নামের বিজ্র থেকে আমাদের বাসা কয়েক মাইল হবে। বর্ষায় বন্ধুরা বিজ্র থেকে লাফিয়ে পড়ত। আর স্রোতের টানে কয়েক কি:মি: পাড়ি দিয়ে বাসায় ফিরত। আজ সেই খালে পানি নেই, মাছ নেই, শহরের পশ্চিমাঞ্চলের সাথে এই খাল ঘিরে যে নৌ যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল তা ধ্বংস হয়ে গেছে।
এই অবকাঠামো তৈরির প্রথম পর্যায়ে আমার প্রতিবাদ করেছি। এডিবিকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে ছিলাম তারা যেন এই অবকাঠামো তৈরিতে সহযোগিতা না করে। পৌর মেয়র তার ব্যবসায়িক স্বার্থের জন্য এই অবকাঠামো গড়ে তুলে খালটিকে হত্যা করেছে। যার ফলাফল ভোগ করছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরবাসী “ শহরে সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা” র্শীষক সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে।
মাঝারি শহর অবকাঠামো উন্নয়নের নামে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে খালগুলোকে হত্যা করে এডিবি এই দেশে ব্যাপক ঋণ বাণিজ্য করেছে। ধ্বংস করেছে নৌ পথ, জীববৈচিত্র। জন্ম দিয়েছে স্থায়ী জলাবদ্ধতার, বৃদ্ধি পেয়েছে পরিবেশ দূষণ। তারপরও যদি উন্নয়নের নামধারী এডিবি আর তাদের দোসরদের চিহ্নিত না করা হয়, তবে তা অন্যায় হবে।
আমি এডিবি এবং তাদের গং (যারা পরামর্শক হিসেবে কাজ করেছে) যারা নিশ্চিত করেছিল ক্যালকুলেটর টিপে উন্নয়নের পর পানির প্রবাহ বাড়বে। বড় বড় ডিগ্রীধারী যারা বারবার প্রশ্ন তুলেছিল আমাদের জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা নিয়ে। তাদের শাস্তি দাবী করি। এই খালটিসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এডিবির অর্থায়নের হত্যা করা খালগুলো উদ্ধার স্বাভাবিক প্রবাহ ফিরিয়ে আনার দাবীতে এডিবির কাছে ক্ষতিপূরণ আদায়ের আহবান জানাই।
পাশাপাশি উন্নয়নের নামে এডিবির এই ধরনের সকল ধ্বংসাক্তমূলক কর্মকান্ড বন্ধ করতে হবে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া খাল নিয়ে এডিবির দায় এড়াতে চাইলে তা সম্ভব নয়। এ প্রকল্পের পরিবেশ সমীক্ষা প্রতিবেদন চেয়ে আমি আমার লড়াই চালিয়ে রেখেছি। এডিবি সাথে আলোচনা চালু থাকবে।
পাশাপাশি একটি খাল, প্রাণ-প্রকৃতি, মানুষের পেশা নির্ভরতা, পরিবেশের ধ্বংসের জন্য ক্ষতিপূরনের দাবী তুলব।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যারা এ কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন বা আছেন আপনারা আমার প্রতিপক্ষ নন।
কিন্তু এ রকম একটা অকাজে সমর্থন দিয়ে। দেশের খালগুলোর স্বাভাবিকতা নষ্ট করে দিচ্ছেন।
  • 262
    Shares