47 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গৃহবধূর কোলে যমজ তিন শিশু!

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে জেলা শহরের পাইকপাড়ায় অবস্থিত দি বসুন্ধরা জেনারেল হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ওই তিন ছেলেসন্তানের জন্ম হয়। প্রসূতি বেদেনা আক্তার জেলার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বপাড়া এলাকার নূর ইসলামের স্ত্রী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হাসপাতালের গাইনি বিভাগের চিকিৎসক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের গাইনি বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. আইরিন হক অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে একে একে ৩ সন্তানকে ভূমিষ্ঠ করেন।

ওই চিকিৎসক বলেন, সদ্য জন্ম নেওয়া ছেলে ২ শিশু মোটামুটি সুস্থ আছেন তাদের মাও সুস্থ আছেন। তবে নবজাতকদের মধ্যে অন্য একটি শিশুর শারীরিক অবস্থা তেমন ভালো নয়।

হাসপাতালের কনসালটেন্ট (এনেসথেসিয়া) ডা. খোকন দেবনাথ জানান, রোববার রাত ১০টার দিকে ওই প্রসূতি মা শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার স্বজনেরা। তবে স্বজনেরা আল্ট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে আগেই জানতেন ওই প্রসূতির গর্ভে দুটি শিশু রয়েছে। একটি শিশু উল্টানো আর একটি নরমালভাবে ছিল।

তিনি জানান, হাসপাতালে আনার পর গর্ভে শিশুদের নড়াচড়া কম ছিল। প্রচুর পানি ভেঙে গিয়েছিল। প্রসূতি মায়ের শরীরে রক্তের পরিমাণ ও কম ছিল। তাই রাত সাড়ে ১১টার দিকে তাকে দ্রুত অস্ত্রোপচার করা হয়। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তিনটি ফুটফুটে ছেলেসন্তান জন্ম দেন ওই গৃহবধূ।

ডা. খোকন দেবনাথ আরও বলেন, শিশু তিনটির ওজন যথাক্রমে ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম, ১ কেজি ৬০০ গ্রাম ও ১ কেজি ৫০০ গ্রাম। দুই শিশুর শারীরিক অবস্থা মোটামুটি ভালো আছে। একটি শিশুটির শারীরিক অবস্থা তেমন ভালো নয়। মা ভালো আছেন।

তিনি আরও জানান, ভূমিষ্ঠ তিনটি শিশুর ওজন কম হওয়ায় তাদেরকে পাশের শিশু হাসপাতালে ইনকিউবিউটর (নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে) রাখা হয়েছে। ওই দম্পতির ঘরে এর আগে আরও চারটি সন্তান রয়েছে বলে জানান ওই হাসপাতালের কনসালটেন্ট।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে হাসপাতালে পরিবারের দায়িত্বশীল কোনো সদস্যের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।