344 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

ভাসানচরে রোহিঙ্গা স্থানান্তর প্রক্রিয়ায় যুক্ত নেই বলে জাতিসংঘের বিবৃতি

পাঁচতলা বিশিষ্ট শেল্টার হোম রয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় এগুলো আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হবে

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অনলাইন ডেস্কঃ

জাতিসংঘ আবাসিক সমন্বয়কারীর কার্যালয় থেকে পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আগামী দিনে কক্সবাজার থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভাসানচরে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা সম্পর্কে জাতিসংঘ অবগত আছে। কিন্তু শরণার্থীদের স্থানান্তর প্রস্তুতি কিংবা রোহিঙ্গাদের শনাক্তকরণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংস্থাটিকে যুক্ত করা হয়নি।এই স্থানান্তর প্রক্রিয়া সম্পর্কে জাতিসংঘের কাছে তথ্যও খুবই কম আছে বলে বলা হয়েছে ওই বিবৃতিতে।

ডিসেম্বর মাসেই আগ্রহী রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর করার পরিকল্পনা সরকার নিয়েছিল- পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের এমন বক্তব্য সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছিল।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সাথে জড়িত কর্মকর্তারাও বলেছেন, স্থানান্তরের প্রক্রিয়া দ্রুত শুরু করার ব্যাপারে সরকারের তাগিদও রয়েছে।

কিন্তু জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা শুরু থেকেই রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরে বাধ্য করার ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে আসছে।

এবারও তাদের বিবৃতিতে একই কথা বলা হচ্ছে।

গত নভেম্বরে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের একটি দলকে ভাসানচর পরিদর্শনে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

বুধবার জাতিসংঘ তাদের বিবৃতিতে বলছে, ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের ব্যাপারে জাতিসংঘ তার আগেকার অবস্থানেই রয়েছে, অর্থাৎ ভাসানচরে যাবার ব্যাপরে, রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যেন জেনে-বুঝে এবং মুক্তভাবে সিদ্ধান্ত নিতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে।

এবং সেজন্য জায়গাটি সম্পর্কে প্রাসঙ্গিক, সুনির্দিষ্ট ও হালনাগাদ তথ্যের ওপর ভিত্তি করে যেন তারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

বাংলাদেশের সরকার ইঙ্গিত দিয়েছে স্থানান্তর প্রক্রিয়া হবে রোহিঙ্গাদের ইচ্ছার ভিত্তিতে, এবং এই গুরুত্বপূর্ণ প্রতিশ্রুতির প্রতি সরকার সম্মান দেখাবে বলে জাতিসংঘ আহ্বান জানিয়েছে।

ভাসানচরে স্থানান্তরিত হবে যে রোহিঙ্গারা দ্বীপটিতে গিয়ে তাদের মৌলিক অধিকার এবং দ্বীপটিতে যাওয়া-আসা করার স্বাধীনতাসহ সব ধরণের সেবা পাওয়ার অধিকারের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছে জাতিসংঘ।

শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং জীবনযাত্রা নির্বাহের পর্যাপ্ত সুযোগ যেন থাকে। এর ফলে ভাসানচরে কর্মক্ষম ও নিরাপদ একটি জনগোষ্ঠী গড়ে ওঠার ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।

২০১৭ সালের অগাস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গণহত্যা ও নিপীড়নের মুখে দেশটি থেকে কয়েক লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

ওই বছরের নভেম্বর মাসে কক্সবাজার থেকে এক লক্ষ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে সরিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে একটি প্রকল্প নেয় সরকার।

আশ্রয়ণ-৩ নামে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেয়া হয় বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে।

কিন্তু ২০১৮ সালে যখন প্রথম তাদের স্থানান্তরের পরিকল্পনা করা হয়, তখন থেকেই রোহিঙ্গারা সেখানে যাবার ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে আসছিল।

আজকের বিবৃতিতে সংস্থাটি বলেছে, ভাসানচর প্রকল্প ঘোষণার সময় থেকে এ পরিকল্পনা সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা সৃষ্টির লক্ষ্যে জাতিসংঘ গঠনমূলক আলোচনার প্রস্তাব রেখেছে এবং সরকারের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ নীতিগত, পদ্ধতিগত এবং বাস্তবায়ন সম্পর্কিত বিষয়গুলো বিবেচনা করেছে।

এই নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যেতে জাতিসংঘ এখনও আগ্রহী বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এছাড়াও, ভাসান চরে যেকোনো স্থানান্তর শুরুর আগে পূর্ণাঙ্গ সুরক্ষা বিষয়ক টেকনিক্যাল প্রোটেকশন অ্যাসেসমেন্ট করার জন্য জাতিসংঘ বরাবর আহ্বান জানিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সরকার অনুমোদন দিলে, জাতিসংঘ প্রায়োগিক এবং সুরক্ষা বিষয়ক মূল্যায়ন করার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

সূত্রঃ বিবিসি

পথিকনিউজ/অনামিকা