151 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

মার্চের প্রথম সপ্তাহে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়(ঢাবি) খুলে দেয়ার সুপারিশ

ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, শুরুতে মাস্টার্সের পরীক্ষার্থীদের হলে তোলা হবে। পরে স্নাতক শেষ বর্ষের পরীক্ষার্থীদের হলে উঠানো হবে। এর মধ্যে হল পরিষ্কার করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সীমিত আকারে মেস বা ক্যান্টিনে লোকবল থাকবে। ছাত্ররা সবসময় তাদের প্রবেশপত্র ও আইডি কার্ড সঙ্গে রাখবে। পরীক্ষার্থী ব্যতিত কেউ হলে প্রবেশ করতে পারবে না। তিনি বলেন, হল খোলার বিষয়ে প্রভোস্ট কমিটি সুপারিশ করেছে।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অগ্রাধিকারভিত্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) স্নাতক শেষ বর্ষ এবং মাস্টার্স শেষ পর্বের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা গ্রহণের জন্যে আগামী মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে হল খুলে দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবন কার্যালয়ে উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রভোস্ট কমিটির সভায় এই সুপারিশ করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী সমকালকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, শুরুতে মাস্টার্সের পরীক্ষার্থীদের হলে তোলা হবে। পরে স্নাতক শেষ বর্ষের পরীক্ষার্থীদের হলে উঠানো হবে। এর মধ্যে হল পরিষ্কার করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সীমিত আকারে মেস বা ক্যান্টিনে লোকবল থাকবে। ছাত্ররা সবসময় তাদের প্রবেশপত্র ও আইডি কার্ড সঙ্গে রাখবে। পরীক্ষার্থী ব্যতিত কেউ হলে প্রবেশ করতে পারবে না।
তিনি বলেন, হল খোলার বিষয়ে প্রভোস্ট কমিটি সুপারিশ করেছে। সুপারিশটি হলো- স্নাতক শেষ বর্ষ এবং মাস্টার্স শেষ পর্বের হলে বসবাসরত শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকারভিত্তিতে পরীক্ষা গ্রহণের উদ্দেশ্যে আগামী মার্চের প্রথম সপ্তাহে হলসমূহ প্রস্তুত রাখতে বলা হয়েছে। সবার জন্য হল উন্মুক্ত করা হয়নি। শুধু যাদের পরীক্ষা, তারা হলে থাকতে পারবে।
করোনার কারণে ১০ মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। আবাসিক হলও বন্ধ। জানুয়ারি মাস থেকে সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা নেয়া শুরু করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এরপরই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে দাবি উঠে হল খুলে পরীক্ষা নেয়ার জন্য। শিক্ষার্থীরা জানায়, হলের বাইরে থেকে পরীক্ষা দেয়ার সামর্থ্য অনেক শিক্ষার্থীরই নেই। এই পরীক্ষা দেয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে। তারই অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এই পরিকল্পনার কথা জানালো। হল কীভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা হবে সেটিরও পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে হলগুলোতে পরিচ্ছন্নতার কাজ চলছে। সকল শিক্ষার্থীর জন্যে কবে নাগাদ হল খোলার সিদ্ধান্ত হতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তীতে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।সকল শিক্ষার্থীর জন্যে কবে নাগাদ হল খোলার সিদ্ধান্ত হতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তীতে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

পথিকটিভি/ এ আর