709 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

মীম ফিরে পেয়েছে মাকে : ফেসবুকের জনপ্রিয়তা আর জনপ্রয়োজন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আল আমীন শাহীন:  আজ দুপুরে মৌড়াইল থেকে বন্ধু কাজী তারেক মাহমুদের ফোন। সে গৃহে অন্তরীণ শুরু থেকে । কিন্তু আজ ফোনে শুনছি গাড়ি চলার শব্দ। সে জানাল ৩/ ৪ বছরের একটি শিশু পাওয়া গেছে। তার বাসার সামনে, সেখানে বীর তাই সে বেড়িয়ে এসেছে । আমাকেও যেতে হবে সেখানে। সদর থানার ওসি সেলিম ভাইকে ফোন দিলাম তিনি বল্লেন শিশুটিকে থানায় নিয়ে যেতে । সেই প্রস্তুতি চলছিলো এরিমাঝে তারেক সহ অন্যান্যরা ফেসবুকে শিশুটির ছবি দিয়ে পোস্ট দিয়েছে। সেই পোস্টের সুবাদে এক মহিলা গেছেন মৌড়াইল, তারেক আবার ফোন করল. মা দাবী করে একজন এসেছে শিশুটি নিতে। ছুটে গেলাম সেখানে। গিয়ে দেখি শিশুটি চিপস খাচ্ছে। মহিলাকে দেখে কিছুটা ভয় পেয়েছে এবং মা ডাকছে না। বিব্রতকর অবস্থায় পড়লাম। পুলিশের এক কর্মকর্তা বল্লেন, শিশুটি মা ডাকে কিনা,বল্লাম না। তাহলে তো নিশ্চিত না হয়ে শিশু দেয়া যাবে না। এদিকে সময় ক্ষেপনই হচ্ছে শিশুটির ভাই এলো চেহারা মিল আছে , পরে একে একে পাড়া প্রতিবেশীরা আসলো। তাদের জবানবন্দীতে মিম নামের শিশুটিকে দেয়া হলো তার মা লিমা বেগমের কাছে। লিমা বেগম জানালেন তিনি নিউ মৌড়াইল পশু হাসপাতালেরি কাছে থাকেন এবং উনার স্বামীর নাম মাসুদ খান। ফেসবুকের জনপ্রিয়তার পাশাপাশি জনপ্রয়োজনীয়তা রয়েছে। স্ট্যাটাসের খবরে মীমকে তার পরিবারে ফিরিয়ে দেয়া গেছে। ধন্যবাদ কাজী তারেক মাহমুদ ধন্যবাদ ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হোসেন, সদর থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম উদ্দিন এ ব্যপারে সহেযোগিতার জন্য।