46 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

রাজধানীর কাকরাইল এলাকার ইন্সটিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারস হলে জবসটিভির কর্মী পরিচিতি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এস.এম.জাকির হোসাইন জিকুঃ   শনিবার (১৪নভেম্বর) হাজার বছরের বাঙ্গালী, বাঙ্গালী জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান জনাব শেখ মুজিবুর রহমানের শতবর্ষে প্রতিষ্ঠিত হওয়া স্যাটেলাইট টেলিভিশন জবসটিভির সম্মানিত ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনাব মাসুম চৌধুরীর সভাপতিত্বে উৎসবমুখর পরিবেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-২০ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইর্ন্টান্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সি (বায়রা) এর প্রেসিডেন্ট জনাব বীরমুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমেদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও টঙ্গী পৌরসভার সাবেক মেয়র, বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন জনাব মেজর জেনারেল আব্দুর রশিদ পিএসসি (অবঃ), এফবিসিসিআই এর সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ হেলাল উদ্দিন। জবস টিভির সম্মানিত উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব বাবুল সরদারসহ আরো অনেকেই। এসময় বক্তারা বলেন, জবস টিভি মুজিব বর্ষ দিয়ে শুরু করেছে, পহেলা অক্টোবর জবস টিভির পদচারণা শুরু হয়। দেশের বেকার জনশক্তিকে বেকার সমস্যা নিরসণের জন্য জবস টিভির উদ্ভাবন। সংবাদের মাধ্যমে চাকরির খবরাখবর দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে দেওয়া এর মূল লক্ষ্য। বাংলাদেশের বেকার সমস্যা নিরসণে সরকার যেমন কাজ করে যাচ্ছে, সরকারের পাশাপাশি মিডিয়াগুলোকেও এগিয়ে আসতে হবে। সঠিক সময়ে চাকরির খবরা খবর ও বিজ্ঞপ্তি সকলের নিকট পৌঁছে দেওয়াই জবস টিভির মূল লক্ষ্য। অনুষ্ঠান থেকে সরকারের নিকট দাবি জানিয়ে বক্তারা আরো বলেন, জবস টিভি ও অন্যান্য মিডিয়ার মাধ্যমে দেশের বেকার জনশক্তির দোরগোড়ায় চাকরির খবরা খবর পৌঁছে দেওয়া হোক।তাতে জবস টিভির মাধ্যমে দেশের বেকার সমস্যা কিছুটা হলেও নিরসন করা সম্ভব হবে বলে মনে করেন বক্তারা। দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে সাংবাদিকগণ উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন। সাংবাদিকরা সরকারের নিকট মুক্ত সাংবাদিকতার দাবি জানান। তারা বলেন, সঠিক সংবাদ প্রকাশ করতে গিয়ে কুচক্রী মহলের হাতে শহীদ হতে হয়েছে অসংখ্য সাংবাদিককে। সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের মতো এ দেশে যাতে আর কোনো সাংবাদিকে শহীদ হতে না হয় এমন কামনাও করেন তারা। সাংবাদিকদের সঠিক স্বাধীনতা দিলে দেশ আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে এবং অপরাধ ও অনিয়ম নির্মূল করা সম্ভব হবে। উপস্থিত সকলে প্রত্যাশা ব্যাক্ত করে বলেন, জবস টিভি সঠিক পরিচালনার মাধ্যমে একদিন সবার প্রিয় চ্যানেল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে। অনুষ্ঠান শেষে জবস টিভির সংবাদ কর্মীগণ অতিথিদের সাথে কুশল বিনিময় করেন।