75 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

শত কোটি টাকা খরচ করেও সরানো যাচ্ছে না কারওয়ান বাজার আড়ত

শত কোটি টাকা খরচ করেও সরানো যাচ্ছে না কারওয়ান বাজার আড়ত

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পথিক রিপোর্ট: কারওয়ান বাজার এলাকাকে রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র বলেন অনেকেই। শত কোটি টাকা খরচ করে প্রায় দেড় দশকেও সরানো যাচ্ছে না বিষফোড়া হয়ে ওঠা কারওয়ান বাজারের আড়ত।
বাণিজ্যিক ভবন, মিডিয়া পল্লী হিসেবে গত কয়েক দশকে রাজধানীর এই এলাকার গুরুত্ব বেড়েছে কয়েক গুণ। আর ভৌগোলিক দিক দিয়েও মিরপুর, মতিঝিল, গুলশান ধানমন্ডি কিংবা পুরান ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগের হাব এই এলাকা।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, যত দ্রুত সম্ভব আড়ত স্থানান্তর হওয়া প্রয়োজন। আমি সময়টা এখন নির্ধারণ করতে পারছি না। আমরা কৃষিমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি এবং কথা বলেছি। উনি কিন্তু রাজি হয়েছেন আড়তের পেছনের রাস্তাটা দেওয়ার জন্য।

স্থানান্তরের পুরো প্রক্রিয়ার তদারকি সংস্থা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন বলছে, আটকে যাওয়া জট খুলছেন তারা। তবে এখনো দিনক্ষণ বেঁধে দিতে পারেননি ডিএনসিসির মেয়র।

এই অঞ্চলেই কয়েক একর জায়গা নিয়ে গড়ে ওঠা কাঁচাবাজারের আড়ত এখনো রয়েছে। বছরের পর বছর নানা দাবি কিংবা উদ্যোগ নিলেও এক অদৃশ্য শক্তির প্রভাবে এখনো এই ব্যস্ততম জায়গায় বহাল এই কাঁচাবাজারের আড়ত।

এক দশকের বেশি সময় ধরে চলছে এই বাজার স্থানান্তরের প্রক্রিয়া। কথা ছিল পাইকারি এই বাজার চলে যাবে নগরের দুই প্রান্ত যাত্রাবাড়ী আর গাবতলীতে। দীর্ঘ অপেক্ষার পর যাত্রাবাড়ীতে নির্মিত দক্ষিণ সিটির কাঁচাবাজার আংশিক চালু হলেও উত্তরে প্রায় একশ’ কোটি টাকা খরচ করে নতুন কাঁচাবাজারের আড়ত পড়ে আছে প্রায় এক দশক ধরে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন নতুন রাস্তা নির্মাণ, সহজ শর্তে দোকান বরাদ্দসহ তাদের সাত দফা দাবি না মানলে ওই পথে পা বাড়াবেন না তারা।

কারওয়ান বাজার ক্ষুদ্র কাঁচামাল আড়ত বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, মন্ত্রণালয়ে আমাদের সঙ্গে ৭টা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এই আলোচনার প্রেক্ষিতে আমরা সম্মতি দিয়েছি যে, এগুলো যদি সমাধান হয় তাহলে আমরা স্থানান্তর হব।