3945 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

সমালোচনাকারীদের কারনে,জনপ্রিয়তা বাড়ছে লায়ন শেখ ওমর ফারুকের

  • 521
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    521
    Shares

নাদিয়া আক্তার,ঢাকা: দিনে দিনে জনপ্রিয়তা বাড়ছে দানবীর লায়ন ফিরোজুর রহমান ওলিও র বড় ছেলে ১১ নং সুলতানপুর ইউপির চেয়ারম্যান লায়ন শেখ ওমর ফারুকের।

ব্যবসা-বানিজ্যের পাশাপাশি সামাজিক ও মানবিক কাজগুলিতে বরাবরই এগিয়ে আছেন তিনি। তার বাবা লায়ন ফিরোজুর রহমান ওলিও ২৭ বছর সুলতানপুর ইউপি চেয়ারম্যান ছিলেন। অত্যন্ত সুনামের সাথে তিনি জনপ্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন। পরবর্তীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে লায়ন ফিরোজুর রহমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায়,১১ নং সুলতান পুর ইউনিয়ন পরিষদের উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনক্রমে লায়ন শেখ ওমর ফারুক নির্বাচনে অংশগ্রহন করে এবং বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়।

 

নির্বাচিত হওয়ার পর সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি তাঁর পরিশ্রম, সাহস, ইচ্ছাশক্তি, একাগ্রতা আর প্রতিভার সমন্বয়ে সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য, স্থানীয় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড সঠিক ও সুচারুভাবে বাস্তবায়নের জন্য তিনি দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। সর্বোপরি সকলের সহযোগিতা পাচ্ছেন এবং সহযোগিতার আশাও ব্যক্ত করে চলেছেন।

 

বেশ কিছুদিন যাবত সোস্যাল মিডিয়ায় ওলিও পরিবারকে নিয়ে বিভিন্ন ধরনের উদ্দেশ্যহীন মানহানীকর পোষ্ট দিয়ে তাদের বিভ্রান্ত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন,নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আওয়ামীলীগ নেতা।

এই অপ্রচারেরই লায়ন শেখ ওমর ফারুকের কর্মকান্ড সকলের সামনে চলে আসে এবং তরুনদের কাছে তাকে পরিচয় করিয়ে দেয়।

প্রবাসী জসিম রজনী নামে এক ফেসবুক ইউসার তার পোষ্টে লিখেন,

তারুণ্যের প্রতীক এ ব্যক্তি তাঁর বয়স ও অভিজ্ঞতা দুটিকেই হার মানিয়েছেন। তাঁর কর্মকান্ডে মনে হয় তিনি নবীন নয়। তিনি অনেক প্রবীণ। তার অভিজ্ঞতা রয়েছে অনেক। এসকল সফল মানুষের পেছনে আছে কিছু গল্প, তা অনেকটা রূপকথার মতো। আর সে সব গল্প থেকে মানুষ খুঁজে নেয় স্বপ্ন দেখার সম্বল, এগিয়ে যাওয়ার জন্য নতুন প্রেরণা।দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই উল্লেখযোগ্য উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রেখে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন তিনি।

 

এলাকার হতদরিদ্র মানুষের উন্নয়নে তাঁর নিরন্তর প্রয়াস সব মহলেই প্রশংসা কুঁড়িয়েছে।মহামারি করোনা ভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে নিজেরর অর্থায়নে কোটি টাকার ত্রাণ সামগ্রী দিয়ে পাশে দাঁড়ানো, স্বাস্থ্য সেবায় বিশেষ অবদান,মসজিদ এর ইমামদেরকে আর্থিক সহযোগিতা, সামাজিক উন্নয়নসহ বিভিন্ন প্রকল্পের বাস্তবায়নে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে এলাকায় নিজের মুখ উজ্জ্বল করেছেন জ্বনাব লায়ন শেখ ওমর ফারুক সাহেব । অসংখ্য মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ,মন্দির ও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠণের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক সমাজসেবী লায়ন ওমর ফারোক সাহেব। ব্যক্তি জীবনে তিনি অত্যন্ত নম্র, ভদ্র, সদা-হাসি খুশী প্রিয় ও সাদা মনের মানুষ। তাঁর মাঝে কোন অহংকার নেই। নিরহংকারী এই মানুষটি দলমত নির্বিশেষে আজ সকলের কাছে প্রিয়।সর্বোপরি কাজ করছেন সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য। বয়সে তরুন হলেও তিনি মনোবল হারাননি। এলাকায় তিনি একজন সাদা মনের উদার মানসিকতার ও দানশীল মানুষ হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিতি লাভ করেছেন।

 

এলাকার সাধারণ মানুষের মতে, আমরা নেতা বা চেয়ারম্যান বুঝিনা।লায়ন ওমর ফারুক ভাই একজন ভাল মানুষ। তিনি একজন কর্মঠ ব্যক্তি। তিনি চেয়ারম্যান পদে থাকলে আমাদের তথা এলাকার উপকার হবে,উন্নয়ন হবে। আমাদের দু:খ দুর্দশায় তাঁকে সহজেই পাশে পাওয়া যাবে।ইতোমধ্যে তিনি সমাজের সকল মতাদর্শের মানুষের কাছে একজন দক্ষ, পরিশ্রমী ও মেধাবী সমাজ সেবক এবং উদীয়মান নেতা হিসাবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছেন। নির্বাচনকালীন সময়ে সাধারণ জনগনকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করে একজন সফল ও জনপ্রিয় ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে সবশ্রেনীর মানুষের অন্তরে জায়গা করে নিয়েছেন ওমর ফারোক সাহেব। মেধা,মনন, কর্ম প্রয়াস শ্রম ও অধ্যাবসায়ের মাধ্যমে ব্যবস্থাপনাগত দক্ষতা অর্জনের মধ্য দিয়ে তিনি নিজেকে গড়েছেন পরিশীলিতভাবে এক উজ্জ্বল অধ্যায়ে।

 

লায়ন শেখ ওমর ফারুক জানান,প্রধানমন্ত্রীর অনুমোতিক্রমে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছি। তা অনেকেই ভালো চোখে দেখেনি। এমন কি আওয়ামীলীগের অনেক নেতাই দলীয় প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করারও পর বিরোধিতা করেছে। যা আওয়ামীলীগের বিরোধীতা। তারাই আবার দলের বড় বড় দায়িত্ব নিয়ে বসে আছে।

যারা আমার নির্বাচনে বিরোধিতা করেছিল তারা ই বিভিন্ন মানুষকে ভয় ভীতি দেখিয়ে,ছলছাতুরী করে সোস্যাল মিডিয়ায় আমাদের বেপারে আপত্তিকর পোষ্ট দিচ্ছে।

আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাসীর প্রতি অনুরোধ রাখবো তারা যেন বিভ্রান্তীকর এসব পোষ্ট দেখে বিভ্রান্তের মধ্যে না পরে। আপনার যাচাই বাচাই করুন তারপর সিদ্ধান্ত নিবেন।

তিনি আরো বলেন আমি এবং আমার পরিবার সব সময় ব্রাহ্মনবাড়িয়াবাসীর সেবায় নিবেদিত। আমরা যতদিন বেচে থাকবো,আপনাদের পাশে থাকার চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ।

  • 21
    Shares
  • 521
    Shares