116 বার দেখা হয়েছে বার পড়া হয়েছে
মন্তব্য ০ টি

৮৪ ঘন্টায় ৪৯ করোনা মৃতদেহের গোসল-কাফন সম্পন্ন করলো গাউসিয়া কমিটির ৩ নারী কর্মী।

৮৪ ঘন্টায় ৪৯ করোনা মৃতদেহের গোসল-কাফন সম্পন্ন করলো গাউসিয়া কমিটির ৩ নারী কর্মী।
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


মুহাম্মদ রফিকুল ইসলামঃ-

সূফী মতাদর্শে বিশ্বাসী, তরিকত পন্থী, দেশের একমাত্র অরাজনৈতিক সংগঠন “গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ”। যে সংগঠনটি বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস বিস্তার লাভ করার পর থেকে শুরু করে অদ্যবধি করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত নারী-পুরুষ সকলের মরদের কাফন-দাফন, সৎকার করে আসছে। সংগঠনটির সকল সদস্য ইসলাম ধর্মের অনুসারী হওয়া সত্ত্বেও কোন প্রকার পারিশ্রমিক বিহীন হিন্দু, বোদ্ধ, খ্রিষ্টানসহ সকল ধর্মের অনুসারীদের লাশ কাফন-দাফন ও সৎকারে কাজ করছে। করোনা আক্রান্ত মৃত্যু ব্যাক্তি লাশ যখন আপন বাবা-মা, ভাই-বোন ও আত্মীয়স্বজন কাফন-দাফন ও সৎকার করতে ভয় পেত, ঠিক তখন থেকেই “গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ” দেশব্যাপী মৃত ব্যাক্তির লাশ কাফন-দাফন ও সৎকার করে আসছে।

ঝুকিপূর্ণ এ কাজটি করতে সংগঠনে কোন সদস্য শুরু থেকে আজও বিন্দুপরিমান পিছুপা হয়নি। যখনি কোন মৃত্যুর খবর তাদের কানে পৌঁছেছে তখনি তাঁর ঐ মৃত ব্যাক্তির শেষবিদায়ের সাথী হয়েছে। সংগঠনের কর্মীরা এ সেবামূলক কাজে দিনরাত ২৪ ঘন্টা নিয়োজিত থাকেন। পুরুষ ও মহিলাদের কাফন-দাফন ও সৎকারে পুরুষ ও নারী সদস্যদের নিয়ে পৃথক পৃথক টিম গঠন করা হয়েছে। এরি ধারাবাহিকতায় সংগঠনটির মাত্র ৩জন নারীকর্মী ৮৪ ঘন্টায় ৪৯ মহিলা মৃতদেহের গোসল-কাফন সম্পন্ন করেন। গত ০২ আগস্ট সোমবার রাত ১২টা হইতে ০৫ আগস্ট বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৮৪ ঘন্টায় শুধু চট্টগ্রাম নগরীর আর.বি. কনভেনশন হলে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত লাশ গোসলখানায় এ কাজ সম্পন্ন করেন তারা। এ ৩জন নারী কর্মীর বাড়ি চট্টগ্রামের পাঁচলাইশে। এই মানবিক টিমের সদস্যরা হলেন বিবি রহিমা বেগম (৫০), নীলুফার নীপা (৩০), নাজনীন পারভিন (৩২)। মানবিক সেবায় নিজেদের আত্মনিয়োগের সুযোগ পেয়ে মানবিক এ নারীরা মহান আল্লাহ, রাসুল (দ.) ও টিম লিডারদের প্রতি শোকরিয়া জ্ঞাপন করেন। করোনা মহামারীর ঝুঁকি সত্ত্বেও সম্পূর্ণ শরীয়ত সম্মতভাবে গোসল ও কাফনের মতো পূণ্যময় কাজে নিজেদেরকে নিয়োজিত রাখতে পেরে গাউসিয়া কমিটির প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সকলের দোয়া কামনা করেন তারা।

সংগঠনটির অন্যতম পরিচালক এড. মোসাহেব উদ্দিন বখতিয়ারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান বিগত মার্চ-২০২০ থেকে শুরু করে সংগঠনের পক্ষ থেকে দেশব্যাপী ৪০১৪ জন মৃত ব্যাক্তির কাফন-দাফন ও সৎকার সহায়তা দেয়া হয়। এছাড়াও ২২০১২জনকে ফ্রি অক্সিজেন সেবা, ৬১৭৭ জনকে ফ্রি এম্বুল্যান্স সার্ভিস ও ১২ হাজারের অধিক মানুষকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। সপ্তাহের ০৬দিন চট্টগ্রাম নগরীর ০৬ স্পটের আর্বান সেন্টারে ৪০জনকে কোভিড টেস্ট সুবিধা দেয়া চলমান আছে। এছাড়াও ১২ হাজারের অধিক মানুষকে চিকিৎসা সেবা প্রদান ছাড়াও গত ২০২০ সনে লকডাউনে ১লক্ষাধিক ও ২০২১ সনে দেড় লক্ষাধিক পরিবারকে খাদ্য সহায়তা, চলতি বর্ষা মৌসুমে দেশব্যাপী দু’লক্ষাধিক বৃক্ষ চারা রোপণ কর্মসূচি পালন করছে।