খাওয়ার পর গোসলের অভ্যাস কতটা ক্ষতিকর, জানেন?

আমাদের বেশির ভাগই গোসলের পর খেতে পছন্দ করেন। অনেকে আবার অলসতার কারণে একেবারে দুপুরে খাওয়া-দাওয়া সেরে তবেই গোসলে যান। কিন্তু, আপনি জানেন কী? খাওয়ার পর ভরাপেটে গোসলের অভ্যাস কতটা ক্ষতিকর? বিশেষজ্ঞরা বলেন, খাওয়ার পর ভরাপেটে গোসলের অভ্যাস অত্যন্ত ক্ষতিকর। এর ফলে শরীরের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে!

 

এবার আসুন জেনে নেওয়া যাক, খাওয়ার পর গোসল করলে শরীরের কী কী ক্ষতি হয়…

আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের মতে, খাবার খাওয়ার পরপরই গোসল করলে শরীরের রক্তসঞ্চালন ধীর হয়ে যায়। এর ফলে হজম প্রক্রিয়াও ধীর হয়ে যায়। কারণ, খাবার হজমের জন্য আমাদের শরীরে প্রচুর এনার্জি এবং পেটে রক্ত​​প্রবাহের প্রয়োজন হয়। তাই আয়ুর্বেদ অনুসারে, খাওয়ার পর গোসল করা একেবারেই উচিত নয়।

চিকিৎসা বিজ্ঞানও আয়ুর্বেদের সঙ্গে একমত। কারণ, রক্ত​​​​সঞ্চালনে বাধা পড়লে শরীরের তাপমাত্রাও ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে, যে কারণে হজম প্রক্রিয়া ধীর হয়ে যায়।

তবে ঈষদুষ্ণ বা হালকা গরম জলে গোসল করলে শরীরে এক বিশেষ প্রক্রিয়া শুরু হয়। বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলে হাইপারথার্মিক অ্যাকশন। এতে শরীরের তাপমাত্রা এক বা দুই ডিগ্রি বেড়ে যেতে পারে। তাতে অবশ্য শরীরের ভালোই হয়। হালকা গরম পানিতে গোসল করলে স্নায়ুতন্ত্র রিল্যাক্স হয়, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কাজ করা শুরু করে এবং শরীরে ঘামের গ্রন্থিগুলো কাজ করে। এর ফলে শরীর থেকে দূষিত পদার্থগুলো সহজেই বের হয়ে যায়।

পেট ভরে খাওয়ার পর শরীরের তাপমাত্রা এমনিতেই খানিকটা বেড়ে যায়। এজন্য শরীরের হজম প্রক্রিয়া শুরুর জন্য বেশি মাত্রায় রক্ত চলাচল শুরু হয়। এই সময়ে গোসল করলে শরীরে তাপমাত্রা আরও বেড়ে যেতে পারে। তার উপর গোসল করলে কখনো কখনো হৃদ্‌স্পন্দনও বাড়ে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, গোসলের ফলে যেহেতু শরীরের তাপমাত্রা এমনিতেই বেড়ে যায়, তাই হজম প্রক্রিয়ার জন্য বাড়তি রক্তের সরবারহ না-ও হতে পারে। এতে হজম প্রক্রিয়া ধীরে হয়ে গিয়ে শরীরে ক্লান্তি আসতে পারে। তাই খাওয়ার পর স্নান না করাই ভালো। এ কারণে ক্ষতি এড়াতে খাওয়ার কমপক্ষে ১ থেকে ৩ ঘণ্টা আগেই গোসলের পরামর্শ দেন তারা।

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *