কর ফাঁকির মামলায় খালাস পেলেন শান্তিতে নোবেলজয়ী ফিলিপাইনের রেসা

লেখক: Md Emon
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

অনলাইন ডেক্স

২০০১ সালে এক রাশিয়ান সাংবাদিকের সঙ্গে নোবেল পুরস্কার জয় করেন র‌্যাপলারের প্রতিষ্ঠাতা মারিয়া রেসা। এ মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে তার ৩৪ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারত।

কর ফাঁকির মামলায় খালাস পেয়েছেন শান্তিতে নোবেলজয়ী ফিলিপাইনের সাংবাদিক মারিয়া রেসা।

মঙ্গলবার দেশটির একটি ট্রায়াল কোর্ট এ আদেশ দেয় বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

মামলা থেকে খালাস দেয়া হয়েছে রেসার প্রতিষ্ঠান র‌্যাপলারকেও। বিষয়টিকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে বিপর্যস্ত সাংবাদিক এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতার জন্য আরেকটি আইনি বিজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

বিবিসি বলছে, ২০০১ সালে এক রাশিয়ান সাংবাদিকের সঙ্গে নোবেল পুরস্কার জয় করেন র‌্যাপলারের প্রতিষ্ঠাতা মারিয়া রেসা। এ মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে তার ৩৪ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারত।

২০১৮ সালে রেসা এবং র‌্যাপলারের বিরুদ্ধে কর ফাঁকির মামলা করে ফিলিপাইন সরকার। রদ্রিগো দুতার্তের নেতৃত্বাধীন সাবেক সরকারের পক্ষে এই মামলা করা হয়।

রায় ঘোষণার পর রেসা সাংবাদিকদের বলেন, তার বেকসুর খালাস ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের কাছে একটি ‘ভালো বার্তা’।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক হয়রানি ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতার ওপর আক্রমণ সত্ত্বেও আদালতের এই নির্দেশনা আমাদের সংকল্পকে শক্তিশালী করেছে।এর মাধ্যমে প্রমাণ হয়, বিচার ব্যবস্থা কাজ করে। আমরা আশা করি বাকি অভিযোগগুলো খারিজ হয়ে যাবে।

৯ মাস আগে একই ধরনের কর ফাঁকির অভিযোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার পর রেসার খালাস আশা করা হয়েছিল।

রেসার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে অংশীদারত্বের ভিত্তিতে ওমিদিয়ার নেটওয়ার্ক এবং নর্থ বেজ মিডিয়ার কাছ থেকে মূলধন জোগাড় করছে তার প্রতিষ্ঠান র‌্যাপলার। তবে তারা কোনো কর পরিশোধ করছে না।

র‌্যাপলারের পক্ষে দেয়া লেনদেনের রসিদ অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানটির ১৪১৮ লাখ ৬০ হাজার পেসো পরিমাণ করযোগ্য আয় হয়েছে। ২০১৫ সালে তারা এ আয় প্রদর্শন করেনি।

তবে র‌্যাপলার বলে আসছে, এখানে কোনো করযোগ্য আয় নেই। বৈধ পথে আর্থিক লেনদেন হয়েছে।

৫৯ বছর বয়সী রেসাকে এর আগে ২০২০ সালের জুনে মানহানির মামলায় ৬ বছরের কারাদণ্ড হয়। পরে তিনি জামিনে মুক্ত হন। ওই মামলাগুলো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

নিউজ/ মো:ইমন