নারীদের বেশি ঘুম দরকার, বলছে গবেষণা

লেখক:
প্রকাশ: ১ মাস আগে

পুরুষের চেয়ে নারীদেরই নাকি বেশি ঘুম দরকার। একটি নয়, একাধিক গবেষণা থেকে এমনটিই জানা গেছে। আর যদি সত্যিই এমনটি হয়, তাহলে কতক্ষণ আর কেন বেশি ঘুম দরকার?

 

বিশেষজ্ঞদের মতে, এর বেশ কিছু কারণ আছে। সময় নিয়ে অবশ্য় কিছুটা মতভেদ আছে। তবে বেশি ঘুম যে দরকার এই কথা মানছেন অনেকেই। কারণগুলো জানলেই সেই ব্যাপারটা খোলসা হবে আরও।

 

বিজ্ঞাপন

 

কী বলছে গবেষণা?

 

গত শতকে লাফবরো বিশ্ববিদ্যালয়ের স্লিপ রিসার্চ সেন্টারের তরফে একটি গবেষণা করা হয়। তাতে ২১০ জন মধ্য়বয়স্ক নারী পুরুষ অংশ নেন।

 

বিজ্ঞাপন

 

তাদের প্রত্যেকের রোজকার কাজ ঘুমের রুটিনের হিসেব রাখা হয়। তাতে দেখা যায়, নারীদের মধ্যে ঘুমের চাহিদা কিছুটা বেশি। তার কারণ তাদের মস্তিষ্কের উপর চাপের পরিমাণ বেশি।

 

ঘুম বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক জিম হর্নের কথায়, ঘুম আমাদের মস্তিষ্কের জন্য সবচেয়ে বেশি জরুরি। আমরা যখন ঘুমোই, তখন ব্রেন নিজেকে মেরামত করে।

 

যে কোনো রকম অনুভূতি থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়। ব্রেনের কর্টেক্স অঞ্চল এই সময় সব কিছুর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এই গোটা মেরামতির প্রক্রিয়া ঘুম ছাড়া হয় না। তাই বিশেষভাবে ঘুম জরুরি।

 

 

 

বিজ্ঞাপন

 

নিদ্রা বিশেষজ্ঞ জিমের মতে, নারীদের মস্তিষ্ক অনেক বেশি সচল। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায়, নারীরা মাল্টিটাস্কিং হন। অর্থাৎ একসঙ্গে বেশ কিছু কাজ করতে পারেন।

 

এই সময় ব্রেনের সব শক্তিই কাজে লাগাতে হয়। ফলে ব্রেনের খাটনিও বেশি হয়। গড় পরিসংখ্যান বলছে, পুরুষদের থেকে নারীদের মধ্যে এর হার বেশি। তাই বেশি পরিমাণে ঘুম দরকার।

 

কতক্ষণ বেশি ঘুমোতে হবে ?

 

বিজ্ঞাপন

 

জিম হর্নের কথায়, অন্তত গড়ে ২০ মিনিট বেশি ঘুমোনো দরকার একজন নারীর। তবে এই সময় নিয়ে মতভেদ আছে। লাফবরোর বিশ্ববিদ্যালয়ের এই গবেষণার সঙ্গে প্রায় একমত স্লিপ ফাউন্ডেশন।

 

স্লিপ ফাউন্ডশনের একটি সূত্র বলছে, দিনে অন্তত ১১ মিনিট বেশি ঘুমাতে হবে নারীদের। তবে কারণ হিসেবে নারীদের দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ, অবসাদের প্রবণতার কথা বলা হয়েছে। এই সমস্যাগুলো নারীদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। তাই তাদের বেশি ঘুম দরকার বলে দাবি স্লিপ ফাউন্ডেশনের।

 

সূত্র: এবিপি লাইভ

 ইমি/পথিক নিউজ