W3Schools.com  

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগরে জমির মালিকানা নিয়ে বিরোধ: আহত ৭ 

লেখক:
প্রকাশ: ৭ মাস আগে

লিটন হোসাইন জিহাদ,ব্রাহ্মণবাড়িয়া:  ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর উপজেলার কাইতলা গ্রামে জমির মালিকানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ৭ জন আহত হয়েছে। ২৫ নভেম্বর শনিবার দুপুরে জাকির হোসেন ও সামসু মিয়ার গোষ্টির মাঝে এ মারামারি ঘটনা ঘটে। এতে জাকির হোসেনের বাড়ির আহত আবুল কাশেম ও ইকবাল হোসেন (৪০) এর  অবস্থা আশাঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

আহত ব্যক্তিদের মধ্যে জাকির হোসেন (৫৬),বাবুল মিয়া (৪২) ইমাম হোসেন (৪০) কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জিডি সুত্রে জানা যায়, নবীনগর কাইতলা গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে মো: জাকির হোসেন (৫৬)  একই গ্রামের মৃত্যু ইরশাদ আলীর ছেলে সামছু মিয়া ও লিল মিয়ার কাছ থেকে ১৯৯৭ সালে কাইতলা মৌজার বিএস দাগ নং ৫৫৯০ এর অন্দরে ৯.৫ শতক সম্পত্তি ক্রয় করেন। সাব কবলা দলিল নং ২৫৬৬। জমি বিক্রি করার পর ক্ষমতা ও সম্পতির লোভে পড়ে তারা বিভিন্ন সময় দলবল নিয়ে জাকির হোসেন সহ তার সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করেন। এ বিষয়ে গ্রামের সালিশ ও বিচারে মিমাংসা না হওয়ায় গত ১১ জুন ২০২৩ ইং তারিখে নবীনগর থানায় একটি সাধারন ডাইরি করা হয় যার নাম্বার-৭০৬।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এ জমির মালিকানা ও দখল নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তাঁদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে থানায় ও স্থানীয় পর্যায়ে কয়েক দফা সালিস বৈঠকও হয়। তবে শেষ পর্যন্ত কোনো সুরাহা হয়নি। গত ২৫ নভেম্বর শনিবার জাকির হোসেন জমির দখল নিতে গেলে সামছু মিয়া (৫০) ,লিল মিয়া (৬০) তাদের সন্তানরা রমজান মিয়া (৩২) আশরাফুল (২৮) রবিউল (২৮) মকবুল (২৬) লোকমান (২২) দেশিয় অস্র নিয়ে তাদের উপর এলোপাতির আক্রমন করে।

আহত ইমাম হোসেনের স্ত্রী জানান, আমার চাচা শ্বশুর জাকির হোসেন ক্রয় কৃত জমিতে বেড়া দিতে গেলে সামছু মিয়া ও তার দলবল নিয়ে হঠাৎ আক্রমন করে। তারা এলাকার দাঙাবাজ মানুষ। তাদের হুমকি তে আমরা মহিলারা বাড়িতে নিরাপদ নই।

আহত জাকির হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ১৯৯৭ সালে জমিটি আমি সামছু মিয়া ও লিল মিয়ার কাছ থেকে ক্রয় করি যার সাব কবলা দলিল নং ২৫৬৬। জমিতে আমায় দখল না দেওয়ায় আদালতে মামলা করি এবং আমি তাতে জয় লাভ করি।আদালতের অর্ডার পেয়ে আমি জমিতে গেলে তারা আমাদের হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমন করে। আমি তাদের কর্মকান্ড নিয়ে থানায় জিডি করে রেখেছি।

এ বিষয়ে সামছু মিয়ার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, এই জমিটি আমাদের, সে মিথ্যা দলিল করে তা দখল করতে চায়। আমরা বাধা দিয়েছি তাতে হাতাহাতি হয়েছে।

এ বিষয়ে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাবুব আলম সাংবাদিকদের জানান, কাইতলা মারামারি হয়েছে বিষয়টি আমি জেনেছি, দুই পক্ষের লোকজনই আহত হয়েছে। তবে এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি।