সিনেমার কাজের জন্য প্রযোজক নায়িকাকে যে প্রস্তাব দিয়েছিলেন

লেখক:
প্রকাশ: ১ মাস আগে

দর্শকরা শুধু সিনেমার পর্দায় নায়ক-নায়িকার রসায়ন দেখতে পান। কিন্তু এর নেপথ্যে থাকে অনেক ঘটনা। সেসব ঘটনার অনেক কিছুই মানুষ জানতে পারে না।

 

বিশেষ করে নায়িকাদের ক্যারিয়ারে অপ্রীতিকর ঘটনা বেশি ঘটে। ভারতীয় অভিনেত্রী অঙ্কিতা লোখান্ডের ক্যারিয়ারের শুরুর দিকের এ ধরনের ঘটনা জানা গেছে। ‘বিগ বস-১৭’র ঘরে যাওয়া থেকে আলোচনায় রয়েছেন অভিনেত্রী অঙ্কিতা লোখান্ডে।

 

বিজ্ঞাপন

 

‘বিগ বস’র অনুষ্ঠানে স্বামী ভিকির জৈনের সঙ্গে তার পারিবারিক অশান্তি নিয়ে আলোচিত চলছিল। অনেকেই বিষয়টিকে ‘স্বাভাবিক’ বলে মেনে নিতে পারেননি। প্রতিযোগিতায় জেতার জন্য পুরোটাই অঙ্কিতার ফন্দি বলে মনে হয়েছিল অনেকেরই।

 

বিজ্ঞাপন

 

তবে ‘বিগ বস’ জিততে পারেননি অঙ্কিতা। চতুর্থ স্থান থেকেই ফিরতে হয়েছে তাকে। কিন্তু তাতে অঙ্কিতাকে নিয়ে আলোচনা থামেনি। সম্প্রতি ‘কাস্টিং কাউচ’ নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে আবারও আলোচনায় এসেছেন এ অভিনেত্রী।

 

সিনেমার কাজের জন্য প্রযোজক নায়িকাকে যে প্রস্তাব দিয়েছিলেন

 

মাত্র ১৯ বছর বয়সে কাজ দেওয়ার পরিবর্তে শারীরিকভাবে ঘনিষ্ঠ হওয়ার প্রস্তাব পান তিনি। এখনো সেই ঘটনার কথা মনে করলে নাকি শিউরে ওঠেন এ নায়িকা।

 

বিজ্ঞাপন

 

আরও পড়ুন: কবে মুক্তি পাচ্ছে আমির খানের নতুন সিনেমা

 

অঙ্কিতা এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, ১৮-১৯ বছর বয়স থেকেই পর্দায় অভিনয় করার জন্য উঠেপড়ে লাগেন তিনি। বিভিন্ন জায়গায় অডিশন দিতে থাকেন। একটি দক্ষিণী সিনেমার জন্য অডিশন দিতে গিয়েছিলেন অঙ্কিতা।

 

পরে অঙ্কিতাকে ফোন করে জানানো হয়, অডিশনে তিনি পাশ করেছেন। তাকে ডেকে পাঠানো হয়। কিন্তু সেখানে গিয়ে অপ্রীতিকর অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হতে হয় অভিনেত্রীকে।

 

বিজ্ঞাপন

 

অঙ্কিতা বলেন, ‘আমাকে ফোন করে জানানো হয়, আপনি অডিশন উতরে গিয়েছেন। আমি তো সেটা শুনে আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়ি! আমাকে বলা হয়েছিল, সেখানে গিয়ে কন্ট্র্যাক্টে সই করে যেতে। আমি চলে গিয়েছিলাম।’

 

তিনি আরও বলেন, ‘ওখানে যাওয়ার পর আমাকে একটা আলাদা ঘরে ডেকে নিয়ে যান সিনেমার প্রযোজক। তারপর আমাকে যা বলেছিলেন, তা শুনে আমার কান যেন বন্ধ হয়ে যাচ্ছিল।’

 

অঙ্কিতা স্মৃতি হাতড়ে বলেন, ‘প্রযোজক বলেছিলেন, আমাকে এ কাজটা পেতে হলে আগে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হতে হবে। তবেই কাজ পাওয়া যাবে। এটা শোনার পর আমি দৌড়ে সেখান থেকে চলে এসেছিলাম।’

 

বিজ্ঞাপন

 

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার

ইমি/পথিক নিউজ